চাকরির জন্য সিভি লেখার নিয়ম 2023

চাকরির জন্য সিভি লেখার নিয়ম: সিভির সাহায্যে একজন চাকরিপ্রার্থীর দক্ষতা সম্পর্কে ধারণা পাওয়া যায়। সিভি এতটা গুরুত্বপূর্ণ যে নিয়োগদাতাদের নজরে পড়তে আকর্ষণীয় করে তৈরি করতে হয়। যা আপনার সম্পর্কে নিয়োগকর্তাকে একটি ভালো ধারণা দেয়। 

নিয়োগকর্তার কাছে চাকরিপ্রার্থীর প্রথম পরিচয় হয় সিভির মাধ্যমে। তাই যার সিভি যত ভালো, তিনি চাকরি পাওয়ার দৌড়ে এগিয়ে থাকেন। অনেকেই মনে করেন, সিভি বড় ও ভারী হলে ভালো; কিন্তু এ ধারণা ভুল। 

বরং সিভিতে অল্প কথায় নিজেকে আকর্ষণীয় ভাবে তুলে ধরা উত্তম। সম্প্রতি এক জরিপে দেখা গেছে, নিয়োগকারীরা একটি সিভি দেখতে 1 মিনিটের কম সময় ব্যয় করেন। সুতরাং সিভিতে এমনভাবে উপস্থাপন করুন, যাতে এক মিনিটে আপনার সম্পর্কে নিয়োগকর্তা ধারণা পাই

ব্যাপারটি কিন্তু কঠিন কিছু নয়। এর জন্য আপনার প্রয়োজন সিভি লেখার নিয়ম ঠিকভাবে প্রয়োগ করতে পারা।

চাকরির জন্য সিভি লেখার নিয়ম
চাকরির জন্য সিভি লেখার নিয়ম

আমাদের দেশের 80 শতাংশ চাকরিপ্রার্থী কম্পিউটার কম্পোজের দোকানে পাওয়া সিভি চাকরির আবেদনের সময় জমা দেয়া। কিন্তু এটা ব্যবহার করা খুবই বোকামি। 

অধিকাংশ ক্ষেত্রে এ সিভি এগুলোর মান ঠিক থাকে না। তাই এ ধরনের সিভি ব্যবহার করা থেকে বিরত থাকুন। আপনি চেষ্টা করলে আপনি নিজেই মানসম্মত একটি সিভি বানাতে পারবেন।

তো চলুন কথা না বাড়িয়ে চাকরির জন্য সিভি লেখার নিয়ম সম্পর্কে বিস্তারিত আলোচনা করা যাক।

সিভি কী?

সিভি

কারিকুলাম ভিটা (Curriculum Vitae) হল সিভির (CV) পূর্ণরূপ।অর্থাৎ যে ডকুমেন্টে চাকরি প্রার্থীর পরিচয়, শিক্ষাগত যোগ্যতা ও দক্ষতার মূল অংশগুলোর উল্লেখ থাকে,  তাকে সংক্ষিপ্ত  সিভি (CV) বলা হয়।

সিভি চাকরির পরীক্ষার পাশাপাশি অ্যাকাডেমিক কাজেও সিভির (CV) ব্যবহার রয়েছে। সিভি (CV) সাধারণত ইংরেজিতে লেখা হয়।

চাকরির জন্য সিভি লেখার নিয়ম

চাকরির জন্য সিভি লেখার জন্য আপনাকে কিছু নিয়ম মেনে চলতে হবে। এই নিয়ম গুলো সব ধরনের সিভির জন্যই প্রয়োজন।

  • ব্যক্তিগত তথ্য: সিভির এ অংশে আপনার নাম, ফোন নাম্বার ও ইমেইল ঠিকানা  সহ সোশ্যাল মিডিয়ার linkedin লিংক থাকে। তবে সিভিতে আপনার ছবি দেয়া আবশ্যক নয়।
  • সারাংশ: এ অংশে খুব সংক্ষেপে  চাকরিপ্রার্থীর পরিচয় দিতে হয়। আপনি কোন ধরনের ক্যারিয়ার গড়তে চান? ও সে ক্যারিয়ারের সাথে বর্তমান চাকরি কীভাবে সম্পর্কযুক্ত?, সে ব্যাপারে 80 শব্দের মধ্যে লিখুন।
  • কাজের অভিজ্ঞতা: আপনি এর আগে কোন ধরনের কাজ করেছেন, তা এ অংশে  লিখুন। সাম্প্রতিক  কাজ গুলোর কথা সবার আগে লিখুন,  যাতে আপনার অভিজ্ঞতা সম্পর্কে  নিয়োগকর্তা ধারণা পায়।
  • শিক্ষাগত যোগ্যতা:  সর্বশেষ আদায় করা ডিগ্রী দিয়ে শুরু করুন। আপনার সর্বশেষ তিনটি ডিগ্রী উল্লেখ না করলেই হবে। মাস্টার্স ডিগ্রিধারী হলে এসএসসি পরীক্ষার ফলাফল উল্লেখ করার প্রয়োজন নেই।
  • দক্ষতা ও অর্জন:  যে চাকরির জন্য আবেদন করেছেন,  তার সাথে প্রাসঙ্গিক কোন দক্ষতা থাকলে তা সিডিতে উল্লেখ করুন। 

চাকরির জন্য সিভি লেখার নিয়ম কোন ধরনের সিভি লিখবেন?

কোন চাকরির জন্য সিভি লেখার সময় দুই ধরনের সিভি লিখতে হয়। এটা নির্ধারণ করে আপনি কোন ধরনের  চাকরির জন্য সিভি লিখতেছেন। 

যে চাকরির সার্কুলারে দক্ষতাকে গুরুত্ব দেওয়া হয় সেখানে আপনার দক্ষতা ভিত্তিক সিভি লিখতে হবে আর যদি চাকরির সার্কুলারে কাজের অভিজ্ঞতা কে গুরুত্ব দিয়ে সার্কুলার প্রকাশ করে তাহলে অবশ্যই অভিজ্ঞতাভিত্তিক সিভি তৈরি করবেন।

মূলত প্রফেশনাল সিভি সাহায্যে নিয়োগকর্তাদের দৃষ্টি আকর্ষণ করা যায়। পাই অবশ্যই আপনাকে চাকরির জন্য সিভি লেখার নিয়ম জানতে হবে।

সিভি ফরমেট কেমন হওয়া দরকার?

  • চাকরির জন্য ১ – ২ পেইজের সিভি বানানো যথেষ্ট।
  • ‘A4’ সাইজের সিভি পেইজ ব্যবহার করুন।
  • সিভি লেখার জনপ্রিয় ফন্ট ‘Arial’, ‘Times New Roman’ বা ‘Calibri’.
  • সিভি তে ব্যবহৃত ফন্টের সাইজ ১১/১২ বেছে নিন।
  • সিভি তে ব্যবহৃত কালারের সংখ্যা ১ – ২ ধরনের হওয়া উত্তম।
  • পড়ার সুবিধার জন্য  শিরোনাম গুলো বুলেট পয়েন্ট ব্যবহার করতে পারেন। 
  • দুই লাইনের মধ্যে যথেষ্ট স্পেসিং বজায় রাখুন।
  • বিশেষ কোন দরকার ছাড়া সিভির ডিজাইনে বৈচিত্র্য নিয়ে আসা থেকে বিরত থাকুন। 

সিভি কীভাবে ভালো করা যায়?

  •  কোন ধরনের ক্যারিয়ার গড়তে চান সে সম্পর্কে দক্ষতা অর্জন করুন।  দক্ষতা অর্জনের  অবশ্যই সিভি আপডেট করতে ভুলবেন না।
  • ইন্টারনেটে সিভির বিভিন্ন টেমপ্লেট পাওয়া যায়। এগুলো ব্যবহার করার সময় চাকরির নিয়োগ বিজ্ঞপ্তি অনুযায়ী পরিবর্তন করে নিন।
  • সব চাকরি ও প্রতিষ্ঠানের জন্য একই স্টাইলের সিভি ব্যবহার করা থেকে বিরত থাকুন। বরং  চাকরির নিয়োগ বিজ্ঞপ্তি অনুযায়ী সিভি বানান।
  •  সিভি বানানোর পর অবশ্যই সিটি ভালো করে  রিভিশন দেন, যাতে কোন প্রকার ভুল না হয়।

শেষ কথা

এই আর্টিকেলে চাকরির জন্য সিভি লেখার নিয়ম সম্পর্কে আপনার ধারণা দেয়ার চেষ্টা করেছি। আশা করি আপনি চাকরির জন্য কি ধরনের সিভি লিখতে হয় সে সম্পর্কে ধারণা পেয়েছেন।

সিভি লেখা অথবা সিভি  টেমপ্লেট সাজানো সম্পর্কে আপনার যদি কোন প্রশ্ন অথবা কোন পরামর্শ থাকলে, তাহলে বিস্তারিত লিখে কমেন্ট করবেন। আমি সবগুলো কমেন্টের উত্তর দেওয়ার চেষ্টা করব।

এরকম টিপস-এন্ড-ট্রিকস রেগুলার পেতে websoriful ওয়েবসাইটের সাথেই থাকুন। চাকরির জন্য সিভি লেখার নিয়ম আর্টিকেলটি সম্পূর্ণ পড়ার জন্য অসংখ্য ধন্যবাদ।

Leave a Comment