সার্চ ইঞ্জিন অপটিমাইজেশন

SEO কি? সার্চ ইঞ্জিন অপটিমাইজেশন কি? What is SEO ?

       আসসালামু আলাইকুম ওরাহমাতুল্লাহ

বর্তমান অনলাইন জগত সম্পর্কে যাদের মোটামুটি ধারণা আছে এবং অনলাইনের সাথে জড়িত সবাই SEO শব্দটির সাথে পরিচিত, একেবারে পরিচিত না হলেও, কমপক্ষে শব্দটি কানে কয়েকবার শুনেছেন এটা আমি নিশ্চিত !

হয়তো অনেকের কাছ থেকে বুঝতে চেয়েছেন বা আপনাদেরকে বুঝাতে চেয়েছে কিন্তু আপনাদের মাথায় সেটা ঢোকেনি। কারণ , বিষয়টি অনেকটাই ঘোলাটে ও কঠিন। একদিনে এবং একবারে বিষয়টি বোঝা অতটা সহজ নয় , তারপরও বিষয়টি আপনাদের সামনে সুস্পষ্ট করার চেষ্টা করবো। ইনশাআল্লাহ।

তাই আজ আমরা আলোচনা করতে যাচ্ছি…

সুচিপত্র

 এসইও(SEO)-র এ টু জেড।

SEO এর পূর্ণরূপ/এসইও বাংলা কি?

Search Engine Optimization.

সার্চ ইঞ্জিন অপটিমাইজেশন।

SEO এসইও/

সার্চ ইঞ্জিন অপটিমাইজেশন কি? / সার্চ ইঞ্জিন অপটিমাইজেশন কি?

SEO মানে “সার্চ ইঞ্জিন অপটিমাইজেশন।” সহজ কথায়, এর অর্থ হল আপনার সাইটের দৃশ্যমানতা বাড়ানোর প্রক্রিয়া যখন লোকেরা গুগল, বিং এবং অন্যান্য সার্চ ইঞ্জিনগুলিতে আপনার ব্যবসার সাথে সম্পর্কিত পণ্য বা পরিষেবাগুলি অনুসন্ধান করে। অনুসন্ধানের ফলাফলে আপনার পৃষ্ঠাগুলির যতটা ভাল দৃশ্যমানতা, ততই আপনার দৃষ্টি আকর্ষণ করা এবং সম্ভাব্য এবং বিদ্যমান গ্রাহকদের আপনার ব্যবসার প্রতি আকৃষ্ট করার সম্ভাবনা বেশি।

এসইও-র পূর্ব কথা/SEO – ইতিহাস

বর্তমানের এই এসইও অনেক পরিবর্তনের ফলাফল, যা আমরা মূলত গুগলের মাধ্যমে দেখি। প্রথম ওয়েব পেজটি ১৯৯১ সালের ৬ আগস্ট টিম বার্নস লি প্রকাশ করেছিলেন।

কয়েক বছর পরে, প্রথম আনুষ্ঠানিক এসইও যাত্রা শুরু হয়েছিল ১৯৯৮ সালে, কিন্তু ২০০১ সাল থেকে এসইও এর গুরুত্ব বৃদ্ধি পেয়েছে।

জেরি ইয়াং এবং ডেভিড ফেলো ১৯৯৪ সালের জানুয়ারিতে ইয়াহু সার্চ ইঞ্জিন প্রতিষ্ঠা করেছিলেন। এর সাহায্যে তিনি ‘ইয়াহু’ ডিরেক্টরি তৈরি করেন।

গুগল ৪ সেপ্টেম্বর, ১৯৯৭ সালে ল্যারি পেজ এবং সের্গেই বাইর্ন দ্বারা প্রতিষ্ঠিত হয়েছিল। গুগল বর্তমানে অন্যতম প্রধান সার্চ ইঞ্জিন। গুগল ইন্টারনেটে সমস্ত অনুসন্ধানের ৯০% এরও বেশি জনপ্রিয় এবং পরিষেবায় ও তার বিস্তৃত পরিসর রয়েছে।

১৯৯৭ সালে, Goto.com স্পনসরড লিঙ্ক এবং পেইড সার্চ চালু করে। ‘গোটো’ মূলত ইয়াহু সার্চ ইঞ্জিনের সাথে কাজ করেছে।

তারপর থেকে, সার্চ ইঞ্জিনগুলি বিভিন্ন অ্যালগরিদম আপডেট সহ এই পর্যায়ে এসেছে। প্রতিযোগিতার দিক থেকে বর্তমানে গুগল সেরা মানের সার্চ ইঞ্জিন।

সার্চ ইঞ্জিন কি?

এক একটি সার্চ ইঞ্জিন মূলত, এক একটি উত্তর দেওয়ার যন্ত্র। তারা ইন্টারনেট থেকে লক্ষ লক্ষ বিষয়বস্তু থেকে খুঁজে তারপর ব্যবহারকারীর অনুসন্ধান অনুসারে তথ্যটি সঠিক কি না তা নির্ধারণ করে এবং এরপর তা ব্যবহারকারীর কাছে উপস্থাপন করতে হাজার হাজার কারণের মাধ্যমে এটি মূল্যায়ন করে।

আর সার্চ ইঞ্জিনগুলি ইন্টারনেটের সমস্ত তথ্য (ওয়েব পেজ, ছবি, ভিডিও, পিডিএফ ইত্যাদি) ক্রল এবং ইনডেক্স করে।

সার্চ ইঞ্জিন কি ক্রল করে?

ক্রলিং হচ্ছে একটি সার্চ ইঞ্জিন প্রক্রিয়া যার মাধ্যমে সার্চ ইঞ্জিন ইন্টারনেটে এক বা একাধিক বট/রোবট (অনেকেই একে মাকড়সা বা ক্রলার বলে) এর মাধ্যমে সব ধরনের নতুন এবং আপডেট করা সামগ্রী এবং কোড ইউআরএল খুঁজে পায়।

উপাদান বিভিন্ন ধরনের হতে পারে। যেমন: ওয়েব পেজ, ছবি/ছবি, ভিডিও, অডিও, পিডিএফ ইত্যাদি। কিন্তু মনে রাখবেন যে এই উপকরণগুলি ইন্টারনেটে লিঙ্কগুলির মাধ্যমে পাওয়া যাবে।

গুগল বট কিছু ওয়েব পেজ আনার মাধ্যমে ক্রল করা শুরু করে, তারপর সেই ওয়েব পেজের লিঙ্কগুলি অনুসরণ করে অন্যান্য পেজ ক্রল করে। এভাবেই এটি লিংকের মাধ্যমে নতুন উপাদান খুঁজে বের করে এবং এটিকে লিষ্টের সাথে সংযুক্ত করে, যাকে বলা হয় ক্যাফিন।

যেখানে ক্রলিং তথ্য একটি বিশাল ডাটাবেসে সংরক্ষিত থাকে এবং যখন কোন ব্যবহারকারী অনুসন্ধান করে, তখন তার অনুসন্ধান অনুসারে তথ্য মিলে যায়।

তথ্যের শ্রেণীবিভাগ যা ব্যবহারকারীর জন্য সবচেয়ে ইম্পর্টান্ট একটা বিষয়।

SEO ইনডেক্সিং কি?

ক্রলিং প্রক্রিয়ার পরে, সার্চ ইঞ্জিন নির্দিষ্ট নিয়ম অনুসারে একটি বিশাল ডাটাবেসে তথ্য সংরক্ষণ এবং সংগঠিত করে। পরের বার যখন কোনো ব্যবহারকারী অনুসন্ধান করে, সার্চ ইঞ্জিন অনুসন্ধান এবং প্রাসঙ্গিকতা অনুসারে ব্যবহারকারীকে অনুসন্ধান ফলাফলে তা দেখায়।

সার্চ ইঞ্জিনের কাজ

যদি আপনি SEO – সার্চ ইঞ্জিন কিভাবে কাজ করে সে সম্পর্কে আমাদের ইউটিউব ভিডিও দেখেন কিংবা আমাদের এই ওয়েবসাইটটির নিয়মিত পাঠক হয়ে থাকেন, তাহলে আপনি জানতে পারবেন যে গুগল এবং অন্যান্য সার্চ ইঞ্জিন শত শত কিওয়ার্ড (সংকেতের) উপর ভিত্তি করে কোন কোন পৃষ্ঠাগুলির রেঙ্ক করবে তা বেছে নেয়। এসইও গুরুত্বপূর্ণ কারণ এটি তা অর্গানিক সার্চ ফলাফলে সবার আগে স্থান পায় এই কিওয়ার্ড (সংকেতগুলি) বাড়ানোর প্রক্রিয়ায় ।

আমরা উদাহরণের মাধ্যমেও বুঝতে পারি সেটা হচ্ছে আমরা যদি websooriful টাইপ করার পর গুগল আমাদের কিছু সার্চ ফলাফল দেখিয়েছে। এখন যদি আমি আপনাকে জিজ্ঞাসা করি আপনি কোন ফলাফলে প্রথমে ক্লিক করবেন?

আপনি নিশ্চিত অন্য ব্যবহারকারীর মতো সর্বপ্রথম কিংবা দ্বিতীয় তৃতীয়ই যে রেজাল্ট গুলো দেখাবে সেটাতে ই ক্লিক করবেন।

SEO কিভাবে কাজ করে?

সহজভাবে বলতে গেলে, একটি সার্চ ইঞ্জিন হল একটি নির্দিষ্ট কিছুর মাধ্যমে ইন্টারনেটে কীওর্ডের মাধ্যমে অনুসন্ধান করা যেখানে আমরা নির্দিষ্ট উত্তর বা তথ্য খোঁজার জন্য কিছু টাইপ করি। উদাহরণস্বরূপ, আমরা যে কোন প্রয়োজনে গুগলে কিছু সার্চ করি। এখন প্রশ্ন হতে পারে কিভাবে একটি সার্চ ইঞ্জিন কাজ করে?

আমাদের যেকোনো ওয়েবসাইটের প্রতিটি পৃষ্ঠায় গিয়ে, গুগল সার্চ ইঞ্জিন বট তাদের সব ধরনের ডাটাবেস সংরক্ষণ করে এবং যখন আমরা সার্চ ইঞ্জিনে সার্চ করি তখন ইনডেক্স ডেটার ফলাফল আমাদের কাছে আসে। আপনার ওয়েবসাইটটি যত বেশি SEO- হবে, ততই এটি অনুসন্ধানের প্রথমদিকের ফলাফলে থাকবে। যখন কেউ একটি সার্চ ইঞ্জিনে একটি নির্দিষ্ট কীওয়ার্ড অনুসন্ধান করে, তখন যে ফলাফলটি প্রথম এবং সর্বাগ্রে আসে তা হল তাদের ওয়েবসাইটের সামগ্রীর গুণগত মান খুব ভালো এবং SEO র কাছে গ্রহণযোগ্য। সর্বোত্তম মানের বিষয়বস্তু শীর্ষে প্রদর্শিত হয়, এবং তার নিচের গুলো ধীরে ধীরে ধাপে ধাপে নীচে বা পরবর্তী পৃষ্ঠায় প্রদর্শিত হয়।

এসইও কেন গুরুত্বপূর্ণ?

বেশিরভাগ ওয়েব ট্রাফিক আসে গুগলের অর্গানিক রেজাল্ট থেকে। অর্গানিক রেজাল্ট সম্পর্কে পরবর্তীতে বিস্তারিত আলোচনা করব…

SEO -র উপকারিতা

Google-এ প্রথম অবস্থানে থাকলে, প্রথম লিঙ্কে সর্বাধিক সংখ্যক ক্লিক পাবেন। গুগল সহ প্রতিটি সার্চ ইঞ্জিনের প্রথম অবস্থানে আপনার ওয়েবসাইট থাকলে আপনার ওয়েবসাইটের ভিজিটর সবসময় বেশি হবে।

SEO এর সুবিধা কি?

উচ্চতর রেংকিং-ই এসইও-র সবচেয়ে উল্লেখযোগ্য সুবিধা।কিন্তু রংঙ্কিং সত্যিই একটি সমাপ্তির মাধ্যম। যে, সফলতার সর্বোচ্চ চূড়ায় আমি পৌঁছে গেলাম। তবে এসইওর কাজটা সবসময়ই করতে থাকতে হবে। যেন আমার আগে কেউ র্যাঙ্কিংয়ে চলে না যায়। আমি যেন সব সময়ই সর্বোচ্চ রেংকিং এ থাকতে পারি। তাহলেই সফলতা আসতে থাকবে। এসইও র আসল সুবিধাগুলির মধ্যে অনেকগুলি ট্রাফিক-সম্পর্কিত।

SEO র‍্যাঙ্কিং

যখন একজন ব্যবহারকারী অনুসন্ধান করেন, সার্চ ইঞ্জিন তার লিস্ট কৃত বিশাল ডাটাবেস থেকে ব্যবহারকারীর অনুসন্ধান অনুসারে সেরা তথ্য দেখায় যা অনুসন্ধানের সাথে মেলে। সার্চ ফলাফল দেখানোর এই পদ্ধতিকে বলা হয় রেংকিং।

SEO সার্চ ইঞ্জিনের অ্যালগরিদম অনুযায়ী র‍্যাঙ্কিং কাজ করে। সার্চ ইঞ্জিনগুলি বিশ্বাস করে যে অনুসন্ধানের পরে আপনি যে প্রথম ওয়েব সাইটটি ভিজিট করেন তা ব্যবহারকারীর সমস্যার একটি নির্দিষ্ট সমাধান দিতে পারে।

এসইও জানতে করণীয় কি?

সার্চ ইঞ্জিনের প্রথম পাতায় আপনার ওয়েবসাইট পেতে হলে আপনাকে সেটা ভালোভাবে জানতে হবে। প্রথমে আপনাকে জানতে হবে এসইও কত প্রকার এবং সেগুলো কি কি?

এসইও কত প্রকার এবং সেগুলো কি কি?

আমরা সাধারণত দুই ধরনের SEO জানি।

১.অনপেজ এসইও (On page seo),

২.অফ পেজ এসইও (off page seo).

✌️ তবে আমি আপনাকে ভিন্ন দুটি নাম শোনাবো…

১. পেইড এসইও ,

২.অর্গানিক এসইও ।

অনপেজ এসইও কি?/0n page seo/অনপেজ এসইও

অন-পেজ এসইও (যা “অন-সাইট এসইও” নামেও পরিচিত) হল সার্চ ইঞ্জিন এবং ব্যবহারকারীদের জন্য ওয়েব পেজ কন্টেন্ট অপ্টিমাইজ করার অনুশীলন। সাধারণ পৃষ্ঠার এসইও অনুশীলনের মধ্যে রয়েছে শিরোনাম ট্যাগ, বিষয়বস্তু, অভ্যন্তরীণ লিঙ্ক এবং URL গুলি অপ্টিমাইজ করা।

এটি অফ-পেজ এসইও থেকে আলাদা, যা আপনার ওয়েবসাইটের বাইরে সংকেতগুলির জন্য অপ্টিমাইজ করছে।

অফ পেজ এসইও কি?/Off page SEO/অফপেজ এসইও

অফ-পেজ এসইও আপনার ওয়েবসাইটের বাইরে সার্চ ইঞ্জিন র‍্যাঙ্কিংকে প্রভাবিত করার সম্ভাবনা নিয়ে করা যেকোনো কিছু বোঝায়। অফ-পেজ এসইওর জন্য আপনার সাইটকে অপ্টিমাইজ করার মানে হল যে ব্যবহারকারী এবং সার্চ ইঞ্জিন উভয়ই আপনার সাইটকে বিশ্বাসযোগ্যতা, কর্তৃত্ব, জনপ্রিয়তা এবং প্রাসঙ্গিকতার দিক থেকে উন্নত করতে হবে।

✓✓✓অফ-পেজ এসইও আপনার সাইটের রেংকিং বাড়াতে আপনার ওয়েবসাইট থেকে দূরে থাকা সমস্ত ইনফরশন এবং কাজকর্ম নির্দেশ করে। অফ-এসইও টিপসের মধ্যে রয়েছে লিঙ্ক, সোশ্যাল মিডিয়া স্ট্র্যাটেজি, ইনফ্লুয়েন্সার মার্কেটিং ইত্যাদি।এর একটি উদাহরণ হল যদি আপনি একটি দুর্দান্ত ব্লগ পোস্ট লিখেন এবং আপনার এই পোস্টটি ভাল লাগার পর, উচ্চ প্রভাবের কেউ এটির একটি লিঙ্ক রি-টুইট করেন।

অর্গানিক এসইও কি?/পেইড এসইও কি?

অর্গানিক এসইও মানে আপনি যদি সুন্দর ভাবে সার্চ ইঞ্জিন অপটিমাইজেশনের সকল নিয়ম মেনে চলেন তাহলে সার্চ ইঞ্জিনের প্রথম পাতায় আপনার ওয়েবসাইটের পাতা আসবে।

আর পেইড এসইও এর অর্থ এই যে , আপনি গুগলকে অর্থ প্রদান করবেন এবং আপনার পৃষ্ঠাটি স্বাভাবিক অনুসন্ধান ফলাফলে প্রথমে উপস্থিত হবে। অনেক সময় অনুসন্ধান করার পর, আমরা প্রথমে এমন কিছু সাইট পেয়েছিলাম যেগুলোর পাশে একটি ‘Add’ লেখা আছে যেগুলোতে SEO দেওয়া হয়।

SEO কিভাবে করবো?/কিভাবে এসইও করে?/কিভাবে SEO করতে হয়?

প্রথমত সার্চ ইঞ্জিন দ্বারা আপনার ওয়েবসাইটকে ইনডেক্স করা। বরং আপনার এই ইনডেক্স করার মাধ্যমে জেতার সম্ভাবনা আছে। ইনডেক্স করা মানে আপনার যাত্রা কেবল শুরু।

দ্বিতীয় ওয়েবসাইট সেটআপ । এসইও ভাল করার জন্য এটি অনেক সহজ যখন আপনার ওয়েবসাইট এসইও সাফল্যের জন্য সঠিকভাবে সেট আপ করা হয়।

আসুন এটি কীভাবে করা যায় সেগুলি দেখি…

√ ভাল ডোমেইন নিন,

√ ওয়েবসাইট প্লাটফর্ম ব্যবহার করুন,

√ভাল ওয়েব হোস্ট ব্যবহার করুন,

√ ইতিবাচক ব্যবহারকারীর অভিজ্ঞতা তৈরি করুন,

√ লজিক্যাল সাইট কাঠামো তৈরি করুন,

√ লজিক্যাল ইউআরএল স্ট্রাকচার ব্যবহার করুন,

√ ভালো SEO প্লাগইন ইনস্টল করুন ।

এসইও ম্যানুয়ালি করার সুবিধা

এসইও আপনাকে উচ্চতর রেঙ্ক করতে সাহায্য করে, কিন্তু আপনি যদি উচ্চতর রেঙ্ক করতে না পারেন যদি গুগল জানতে না পারে যে আপনার ওয়েবসাইটটি প্রথম স্থানে আছে।তখন গুগল শেষ পর্যন্ত আপনার নিজের ওয়েবসাইট খুঁজে পাবে, কিন্তু আপনি যদি ম্যানুয়ালি আপনার সাইট জমা দেন তাহলে কয়েকটি মূল সুবিধা পাবেন।

যেমনঃ-

১.দ্রুত আবিষ্কার।বেশিরভাগ নতুন ওয়েবসাইটের মধ্যে অন্যান্য ওয়েবসাইটের কোনো ব্যাকলিঙ্ক নেই, তাই গুগলের সেগুলি আবিষ্কার করতে সময় লাগতে পারে।(ব্যাকলিঙ্ক সম্পর্কে পরবর্তীতে বিস্তারিত আলোচনা করা হবে।)

২.আপনার ওয়েবসাইট উন্নত করুন। গুগল সার্চ কনসোল আপনার ওয়েবসাইটকে কীভাবে উন্নত এবং অপ্টিমাইজ করা যায় সে বিষয়ে হেল্প ও সুপারিশ করে।

এসইও টুলস

আপনি যদি এক জায়গায় সেরা এসইও টুলস দেখতে চান, তাহলে ব্যক্তিগতভাবে ১৭৫ টি ফ্রি এবং পেইড টুল পরীক্ষা করেছি এবং পর্যালোচনা করেছি। আশা করি আপনার এগুলো পছন্দ হবে…!

এবং আপনি আপনার জন্য সেরা এসইও সফটওয়্যার খুঁজে পেতে তালিকার মাধ্যমে ফিল্টার করতে পারেন।  ১.টেকনিক্যাল এসইও

২.কীওয়ার্ড রিচার্জ

৩.রেংক ট্র্যাকিং

৪.কন্টেন্ট অপ্টিমাইজেশন

৫.ব্যাকলিঙ্ক বিশ্লেষণ

৬.ভিডিও এসইও।

ওয়েবসাইটের জন্য SEO/SEO কতদিন করতে হবে?

একটা ওয়েবসাইটের জন্য কতদিন এবং অ্যাডভান্স এসইও করবেন এটা লিখে শেষ করা সম্ভব নয় ।আপনি যদি কোন ওয়েবসাইটের জন্য অ্যাডভান্স এসইও করতে চান তাহলে আপনি আমাদের সাথে যোগাযোগ করতে পারেন। আমরা আপনাকে সঠিক গাইডলাইন দিব আর বেসিক সম্পর্কে , এই কনটেন্টেই ধারণা দেওয়া আছে আপনি পড়ে আশা করি অনেক কিছুই শিখতে পারবেন।

কেন আপনি আমাদের এসইও সেবা নিবেন?

১.আমরা আপডেট করা SEO অ্যালগরিদম দিয়ে SEO করি।

২.সেরা কীওয়ার্ড গবেষণা এবং প্রতিযোগী বিশ্লেষণের জন্য পর্যাপ্ত সময় দিয়ে থাকি।

৩.আপনার ওয়েবসাইটকে অপ্টিমাইজ করার জন্য SEO অডিট করি।

৪.কর্তৃপক্ষ স্তরের সাইট থেকে উচ্চমানের ব্যাকলিঙ্ক করি।

৫.যথাযথ ভাঙ্গন সহ মাসিক অগ্রগতি প্রতিবেদন প্রদান করে থাকি।

৬.আমাদের এসইও সাফল্যের কারণগুলি ব্যবহারকারীর অভিজ্ঞতার দিকগুলির জন্য প্রক্সি হিসাবে বিবেচিত হতে পারে। এইভাবে সার্চ বটগুলি অনুমান করে যে কোন ওয়েবসাইট বা ওয়েব পেজ অনুসন্ধানকারীকে তারা যা খুঁজছে তা দিতে পারে।

৭.পেইড সার্চ বিজ্ঞাপনের বিপরীতে, আপনি উচ্চতর জৈব অনুসন্ধানের র্যাঙ্কিং পেতে সার্চ ইঞ্জিনকে অর্থ প্রদান করতে পারবেন না, যার অর্থ এসইও বিশেষজ্ঞদের কাজ করতে হবে। এখানেই আমরা প্রবেশ করি।

৮.আমরা একটি সম্পূর্ণ নতুন নিকেস বিভাগও পেয়েছি যা তিনটি মূল স্থানগুলির পিছনে এসইও সাফল্যের কারণগুলির মধ্যে গভীরভাবে ডুব দেয়: স্থানীয় এসইও, সংবাদ/প্রকাশনা এবং ইকমার্স এসইও। যদিও আমাদের সামগ্রিক এসইও পিরিয়ডিক টেবিল আপনাকে সর্বোত্তম অনুশীলনে সাহায্য করবে, এই প্রতিটি নিচের জন্য এসইওর সূক্ষ্মতা জানা আপনাকে আপনার ছোট ব্যবসা, রেসিপি ব্লগ এবং/অথবা অনলাইন স্টোরের সার্চ ফলাফলে সফল হতে সাহায্য করতে পারে।

৯.অনুসন্ধান অ্যালগরিদমগুলি প্রাসঙ্গিক, প্রামাণিক পৃষ্ঠাগুলি দেখানোর জন্য এবং ব্যবহারকারীদের একটি দক্ষ অনুসন্ধানের অভিজ্ঞতা দেওয়ার জন্য ডিজাইন করা হয়েছে। এই বিষয়গুলিকে মাথায় রেখে আপনার সাইট এবং বিষয়বস্তুকে অপ্টিমাইজ করা আপনার পৃষ্ঠাগুলিকে অনুসন্ধানের ফলাফলে উচ্চতর স্থান পেতে সহায়তা করতে পারি।

√√আপনি যদি আমাদের এসইও সার্ভিস সম্পর্কে আগ্রহী হন তাহলে নির্দ্বিধায় আমাদের সাথে যোগাযোগ করুন।

এসইও কঠিন না সহজ?

অনেকে মনে করেন এসইও খুব কঠিন এবং হয়তো অনেক চেষ্টার পরেও এটা শেখা সম্ভব হবে না। কিন্তু এটা সত্যি না।এসইও এর বেসিক আসলে বেশ সহজ। এবং গুগল থেকে সমস্ত ওয়েব ট্র্যাফিকের ৫৭% এর সাথে। আপনার যদি কোনও ওয়েবসাইট থাকে তবে এটি অবশ্যই শেখার মতো কিছু।

যদি আপনি মনে করেন যে মৌলিক বিষয়গুলি আপনাকে স্থান দেওয়ার জন্য যথেষ্ট নয়, এবার চিন্তা করুন। ওয়েবসাইট চালানো বেশিরভাগ লোকের এসইও সম্পর্কে খুব সীমিত ধারণা রয়েছে, তাই মূল বিষয়গুলি জানা আপনাকে অবশ্যই সফল হতে সহায়তা করতে পারে।

গুগল এসইও বেসিক/SEO Google/বিং এসইও বেসিক/SEO Bing

SEO নীতিমালা

√সার্চ ইঞ্জিনের মৌলিক নীতি

• ব্যবহারকারী বা ব্যবহারকারীদের জন্য ওয়েব পেজ তৈরি করুন, সার্চ ইঞ্জিন নয়।

• ব্যবহারকারীকে কখনও ঠকাবেন না।

• সার্চ ইঞ্জিনের নির্দেশিকা লঙ্ঘন করে এবং বিভিন্ন স্প্যাম পদ্ধতি অনুসরণ করে সার্চ ইঞ্জিনে রেঙ্ক করার চেষ্টা করবেন না।

• আপনি সর্বদা ব্যবহারকারীদের জন্য সামগ্রী তৈরি করেন।

√√ নিজেকে জিজ্ঞাসা করুন, আপনার বিষয়বস্তু ব্যবহারকারীকে কীভাবে উপকৃত করবে? সার্চ ইঞ্জিন ছাড়া আপনার বিষয়বস্তু কি গুরুত্বপূর্ণ?

• আপনার ওয়েবসাইটকে আরো সুনির্দিষ্ট, তথ্যবহুল এবং ব্যবহারকারী বান্ধব করতে আপনি কি করতে পারেন তা নিয়ে চিন্তা করুন।

• পরিষ্কার, গভীর, আকর্ষক এবং সহজে খুঁজে পাওয়া সামগ্রী তৈরি করুন।

• পৃষ্ঠার শিরোনাম সাফ করুন এবং বিষয়বস্তুর সাথে মিলিয়ে নিন।

• Bing সার্চ ইঞ্জিনের মধ্যে জনপ্রিয়তা হিসেবে রিংকে জনপ্রিয়তা দেয় এবং মূল লিঙ্কগুলিকে পুরস্কৃত করে।

• সোশ্যাল মিডিয়া ক্রিয়াকলাপ এবং সামাজিক শেয়ারগুলি ইতিবাচক সংকেত হিসাবে বিবেচিত হয় এবং জৈব র্যাঙ্কিং অর্জনে সহায়তা করে।

• একটি সাইটের পৃষ্ঠার গতি একটি গুরুত্বপূর্ণ ফ্যাক্টর যা ব্যবহারকারীর অভিজ্ঞতা বাড়াতে এবং স্থান পেতে সাহায্য করে।

• Bing সার্চ ইঞ্জিনকে ছবি এবং বিষয়বস্তু বুঝতে সাহায্য করার জন্য Alt ট্যাগ ব্যবহার করুন।

SEO তে করা নিষেধ/সার্চ ইঞ্জিনে যা করা উচিত নয়/SEO তে বর্জনীয় বিষয়গুলি

• স্বয়ংক্রিয়ভাবে তৈরি সামগ্রী তৈরি করা।

• লিঙ্ক স্কিম ব্যবহার বা লিঙ্ক অপব্যবহার।

• শিরোনাম দ্বারা সামগ্রী তৈরি করা বা অন্য কারও সামগ্রী অনুলিপি করা এবং আটকানো।

• সার্চ ইঞ্জিনগুলিকে এক ধরনের কন্টেন্ট ক্লোজ করা বা দেখানো এবং ব্যবহারকারীর কাছে অন্য ধরনের কন্টেন্ট দেখানো।

• লুকানো টেক্সট বা লিঙ্ক ব্যবহার করা।

• নির্দিষ্ট সার্চের জন্য পেজ তৈরি করা, সার্চ থেকে ভিজিটরদের রেঙ্ক করা।

• লিঙ্ক অপব্যবহার, লিঙ্ক কেনা, লিঙ্ক স্কিম ব্যবহার করে যা ওয়েবসাইটকে ডি-ইনডেক্স করে।

• নির্দিষ্ট কীওয়ার্ড ব্যবহার করে ইউআরএল তৈরি করা, কোন প্যারামিটার অনুসরণ না করে, ডুপ্লিকেট কন্টেন্ট ব্যবহার করে।

• নির্দিষ্ট কিওয়ার্ড দিয়ে ইউআরএল বাড়ান, আরো কিওয়ার্ড ব্যবহার করুন, কোন সংখ্যা ব্যবহার করবেন না।

• কেনা লিঙ্কে জাভাস্ক্রিপ্ট/ফ্ল্যাশ/সিলভারলাইট সামগ্রী ব্যবহার করা।

• সদৃশ সামগ্রীর ব্যবহার।

• কীওয়ার্ড স্টাফিং।

• ক্লোকিং – সার্চ ইঞ্জিনকে এক ধরনের কন্টেন্ট এবং ব্যবহারকারীর কাছে অন্য ধরনের কন্টেন্ট দেখানো।

এসইও লাইব্রেরি কি?

সাধারণত এসইও কভার করার পাশাপাশি, সার্চ ইঞ্জিন ল্যান্ডে বিশেষ করে প্রধান সার্চ ইঞ্জিনের জন্য সার্চ ইঞ্জিন অপটিমাইজেশন এলাকা রয়েছে, সেটাই হলো এসইও লাইব্রেরী।

SEO টিউটোরিয়াল

ইউটিউবে ‘এসইও টিউটোরিয়াল’ লিখে সার্চ দিলে হাজার হাজার টিউটরিয়াল আসবে সেখান থেকে আপনি টিউটোরিয়াল দেখে , আমাদের ব্লক পড়ে হোক , কোন বই পড়ে হোক, ইউটিউব ভিডিও দেখে হোক কিংবা আমাদের কাছ থেকে কোর্স করে হোক আপনি এসইও শিখতে পারবেন। আর এডভান্স লেভেলের এসইও শিখতে, আমাদের সাথে যোগাযোগ করবেন। খুবই সহজ এবং সাবলীল সাবলীলভাবেই আপনাদেরকে আমরা এসইও অ্যাডভান্স লেভেলেরটা শিখিয়ে দিব।

কিভাবে এসইও শিখবেন?

শুধু পড়লেই হবে না, ভিডিও দেখলে হবে না, টিউটোরিয়ালগুলো শোনার সাথে সাথে যতটকু বোঝা সম্ভব হয়েছে, ততটুকুই অনুশীলন করতে থাকবেন ।

যদি কখনো কোনো সমস্যায় পড়েন আমাদের সাথে যোগাযোগ করবেন।

এবং যে শব্দগুলো বুঝতে পারবেন না, আপনার কাছে কঠিন মনে হবে , সেই শব্দগুলোর প্রত্যেকটা বিষয় নিয়ে প্রচুর পরিমাণে রিচার্জ করবেন ।

গুগোল এসইও ট্রেনিং এবং টিউটোরিয়াল/SEO trainings from google/SEO tutorials from google/বিনামূল্যে অনলাইন এসইও/প্রশিক্ষণ ইবুক/গুগল কোর্স/ফ্রি এসইও কোর্স/Course SEO/গুগল কি/এসইও প্রশিক্ষণ দেয়?

হ্যা! গুগোল SEO প্রশিক্ষণ দেয়। গুগোল ফ্রিতে ও প্রশিক্ষণ দিয়ে থাকে। আপনি উপরের এই কী-ওয়ার্ড গুলোর মধ্য থেকে যে কোন একটি কী-ওয়ার্ড গুলো লিখে গুগলে সার্চ দিলেই পেয়ে যাবেন গুগলের এসইও কোর্স।

আমি কিভাবে গুগলে এসইও পেতে পারি?

হ্যাঁ অবশ্যই আপনিও গুগলে এসইও পেতে পারেন।

আমি কি নিজে এসইও শিখতে পারি?

আপনি নিজে নিজে এসইও শিখতে পারবেন তবে এটা খুবই কঠিন হবে আপনার জন্য তারচেয়ে বরং আমি আপনাকে ফ্রিল্যান্সিং শেখার ক্ষেত্রে যদি পরামর্শগুলো দিয়েছি এখানেও আমার সেই একই পরামর্শ দিতে চাই।

আমি কিভাবে SEO শিখতে পারি?

আমাদের আপডেট এই ব্লগের সাথে যুক্ত থাকুন এবং ইউটিউব চ্যানেলের সাথে যুক্ত থাকুন ।আপনাকে সমস্ত গুরুত্বপূর্ণ ধারণাগুলির সাথে পরিচয় করিয়ে দেবে, যার মধ্যে সফল পৃষ্ঠায় এবং অফ-পেজ এসইওর উপাদানগুলি এবং “বিষাক্ত” বা কৌশল যা আঘাত করতে পারে আপনার রেংকিং।

মার্কেটিংয়ের জন্য এসইও কেন গুরুত্বপূর্ণ?/SEO মার্কেটিং এর জন্য গুরুত্বপূর্ণ

এসইও মার্কেটিং এর একটি মৌলিক অংশ কারণ মানুষ প্রতিবছর ট্রিলিয়ন অনুসন্ধান করে থাকে, প্রায়ই পণ্য এবং পরিষেবার তথ্য খোঁজার বাণিজ্যিক উদ্দেশ্য নিয়ে। অনুসন্ধান প্রায়ই ব্র্যান্ডের জন্য ডিজিটাল ট্র্যাফিকের প্রাথমিক উৎস এবং অন্যান্য মার্কেটিং চ্যানেলগুলির পরিপূরক। আপনার প্রতিযোগিতার তুলনায় অনুসন্ধানের ফলাফলে বৃহত্তর দৃশ্যমানতা এবং উচ্চতর রেংকিং আপনার নিচের লাইনে একটি উপাদান প্রভাব ফেলতে পারে।

যাইহোক, অনুসন্ধান ফলাফল গত কয়েক বছর ধরে ব্যবহারকারীদের আরও সরাসরি উত্তর এবং তথ্য দেওয়ার জন্য বিকশিত হচ্ছে যা ব্যবহারকারীদের অন্যান্য ওয়েবসাইটে চালানোর পরিবর্তে ফলাফলের পৃষ্ঠায় রাখার সম্ভাবনা বেশি।

এছাড়াও লক্ষ্য করুন, সার্চ ফলাফলে সমৃদ্ধ ফলাফল এবং নলেজ প্যানেলের মতো বৈশিষ্ট্যগুলি দৃশ্যমানতা বৃদ্ধি করতে পারে এবং ব্যবহারকারীদের সরাসরি আপনার কোম্পানি সম্পর্কে আরও তথ্য প্রদান করতে পারে।

সংক্ষেপে, SEO হল একটি সামগ্রিক মার্কেটিং বাস্তুতন্ত্রের ভিত্তি। যখন আপনি বুঝতে পারবেন যে আপনার ওয়েবসাইট ব্যবহারকারীরা কি চায়, তাহলে আপনি আপনার প্রচারাভিযান (অর্থ প্রদান এবং অর্গানিক), আপনার ওয়েবসাইট জুড়ে, আপনার সামাজিক মিডিয়া বৈশিষ্ট্য এবং আরও অনেক কিছুতে সেই জ্ঞান বাস্তবায়ন করতে পারেন।

ইউটিউব এসইও

ইন্টারনেটে অন্যান্য অনেক জায়গায় সার্চ ইঞ্জিন বিদ্যমান। আপনি যখন কোনো ওয়েবসাইট অ্যাক্সেস করেন, উদাহরণস্বরূপ, সেখানে সাধারণত একটি অনুসন্ধান বৈশিষ্ট্য থাকে, যা অভ্যন্তরীণ বিষয়বস্তু খুঁজে পায়। সোশ্যাল মিডিয়া সাইটে, একটি অভ্যন্তরীণ অনুসন্ধান ইঞ্জিনও রয়েছে।

এটি ইউটিউবেও ঘটে, যা তার নিজস্ব অনুসন্ধান ব্যবস্থা প্রদান করে যাতে ব্যবহারকারীরা সহজেই যে চ্যানেল এবং ভিডিওগুলি খুঁজছেন তা খুঁজে পেতে পারেন।

এবং ইন্টারনেট অনুসন্ধানকারীদের মধ্যে প্ল্যাটফর্মটির অনেক ওজন রয়েছে ‘১৭সালের গবেষণায় দেখা গেছে যে, ইউটিউবে ইয়াহুর চেয়ে বেশি সংখ্যক অনুসন্ধান ছিল! এবং ‘বিং’ -এ ও!

মনে রাখবেন, ভিডিও প্ল্যাটফর্মটি ও গুগল কিনেছিল। অতএব, ইউটিউব সার্চ ইঞ্জিনের মতো একই সার্চ ইন্টেলিজেন্স গ্রহণ করে এবং একই উদ্দেশ্য গ্রহণ করেছে। ব্যবহারকারীকে সেরা অনুসন্ধানের অভিজ্ঞতা প্রদান করা।

যখন ব্যবহারকারী ইউটিউবে একটি সার্চ শব্দ টাইপ করে, তখন প্ল্যাটফর্মের রোবটগুলি প্রাসঙ্গিকতার ভিত্তিতে ব্যবহারকারীর কাছে সেরা ফলাফল পৌঁছে দেওয়ার জন্য সমস্ত চ্যানেল এবং ভিডিও জুড়ে ছড়ায়। এবং, প্রতিটি ব্যক্তির জন্য কোনটি সেরা ফলাফল তা নির্ধারণ করতে, অ্যালগরিদম বেশ কয়েকটি কারণ বিবেচনা করে।

ইউজার সার্চ এবং ব্রাউজিং হিস্টোরি – যেমন গুগলের মত – ফলাফলের পাতা কাস্টমাইজ করার জন্য গুরুত্বপূর্ণ পয়েন্ট। কিন্তু, যারা ইউটিউবে বিষয়বস্তু প্রকাশ করে তাদের জন্য এটা জানা জরুরী যে, অ্যালগরিদমেরও চ্যানেল এনগেজমেন্ট এবং অপ্টিমাইজেশনের মানদণ্ড রয়েছে যাতে ফলাফলগুলি স্থান পায়। উদাহরণস্বরূপ আমাদের webshoriful ইউটিউব চ্যানেলটি।এটি এমন একটি ইউটিউব চ্যানেল যা প্রচুর মন্তব্য এবং লাইক পেতে থাকে।

কেন এমন হয়? কারণ প্ল্যাটফর্ম বুঝতে পারে যে এই ভিডিওগুলি ব্যবহারকারীর কাছে আরও মূল্যবান অভিজ্ঞতা সরবরাহ করে।

এবং এটিও গুগলের নিজস্ব অ্যালগরিদম বোঝে। যেহেতু সার্চ ইঞ্জিন এবং ইউটিউব একই কোম্পানির অন্তর্গত, তাই প্ল্যাটফর্মগুলির মধ্যে একটি ইন্টিগ্রেশন রয়েছে।

সুতরাং, যখন কেউ গুগলে অনুসন্ধান করে, সার্চ ইঞ্জিন ইউটিউব এবং অন্যান্য প্ল্যাটফর্ম উভয় থেকে ভিডিও সামগ্রীর একটি ক্যারোজেল উপস্থাপন করে, যা সেই অনুসন্ধানের জন্য আরও প্রাসঙ্গিক।

√√ একটি কথা ভালো করে মনে রাখুন, ইউটিউবের জন্য আপনি যে এসইও অপ্টিমাইজেশানগুলি তৈরি করেন তা কেবল প্ল্যাটফর্মের মধ্যে অনুসন্ধানের ক্ষেত্রেই প্রযোজ্য নয়, গুগল অনুসন্ধানে সেই স্থানটির জন্য প্রতিযোগিতা করার জন্যও।

এতক্ষণের আলোচনায় হয়তো আপনাদের মাথা ঘুরছে, অনেক কিছুই বুঝতে কষ্ট হচ্ছে । নিচে আমরা আরেকটু সহজে বোঝানোর চেষ্টা করছি…!

 আমরা এই বিষয়গুলিকে আরও গভীরভাবে কিন্তু অতি সংক্ষেপে ব্যাখ্যা করেছি এবং সার্চ ইঞ্জিন অপটিমাইজেশনের বিশেষজ্ঞদের কৌশলগত টিপস তুলে ধরছি যা আপনার ওয়েবসাইটকে জৈব অনুসন্ধান থেকে আরও বেশি ভিজিটর পেতে সাহায্য করবে।

১| সার্চ ইঞ্জিনের সাফল্যের ফ্যাক্টর: এগুলি অন-অফ-ফ্যাক্টর যা আপনার সার্চ র‍্যাঙ্কিংকে প্রভাবিত করতে পারে। আমরা এসইওতে নিশ ভার্টিক্যাল এবং এড়াতে বিষাক্ত এসইও কৌশলগুলিও দেখব।

২| বিষয়বস্তু এবং সার্চ ইঞ্জিন সাফল্যের কারণ: সার্চ ইঞ্জিন এবং আপনার টার্গেট অডিয়েন্স পছন্দ করবে এমন উচ্চমানের কন্টেন্ট তৈরির জন্য এই উপাদানগুলো মাথায় রাখুন।

৩| সাইট আর্কিটেকচার এবং সার্চ ইঞ্জিন সাফল্যের কারণ: আসুন আমরা পর্দার পিছনে যাই এবং আপনার সাইটের দিকগুলি দেখি যা সার্চ ইঞ্জিনের জন্য ব্যবহারকারীর অভিজ্ঞতা অ্যাক্সেস এবং প্রভাবিত করা সহজ করে।

৪| এইচটিএমএল কোড এবং সার্চ ইঞ্জিন সাফল্যের কারণ: এইচটিএমএল ট্যাগ এবং স্ট্রাকচার্ড ডেটা আপনার সাইটে তথ্য সংগঠিত করতে সাহায্য করে এবং সার্চ ইঞ্জিনকে আপনার বিষয়বস্তু বুঝতে সাহায্য করে।

৫| ট্রাস্ট, অথরিটি, এক্সপার্টাইজ এবং সার্চ রেংকিং: আপনার ব্যবহারকারীরা কিভাবে আপনার সাইটের সাথে জড়িত, সেইসাথে এর খ্যাতি এবং কর্তৃত্ব, সার্চ ইঞ্জিনকে ব্যবহারকারীদের দেখানোর যোগ্য কিনা তা নির্ধারণ করতে সাহায্য করে।

৬| সার্চ ইঞ্জিনে লিঙ্ক বিল্ডিং এবং রেংকিং: কেন লিঙ্কগুলি এখনও গুরুত্বপূর্ণ এবং তারা সার্চ ইঞ্জিনকে আপনার বিষয়বস্তু সম্পর্কে কী বলে।

৭| ব্যক্তিগতকরণ এবং সার্চ ইঞ্জিন রেংকিং: এগুলি ব্যবহারকারী-নির্দিষ্ট উপাদান, যেমন অবস্থান এবং অভিপ্রায়, যা ব্যবহারকারীদের দেখানো ফলাফলগুলিকে প্রভাবিত করতে পারে।

৯| টক্সিন এবং সার্চ ইঞ্জিন স্প্যাম জরিমানা: এসইও “শর্টকাট” থেকে সাবধান। এই কৌশলগুলি ব্যবহার করে ধরা পড়ার ফলে ম্যানুয়াল অ্যাকশন পেনাল্টি হতে পারে অথবা আপনার সাইটকে সার্চ ইনডেক্স থেকে বাদ দেওয়া হতে পারে।

১০| অনুসন্ধানে উদীয়মান উল্লম্ব: ভয়েস, স্থানীয়, চিত্র এবং ভিডিও অনুসন্ধান ব্যবহারকারীদের জন্য তারা যা খুঁজছেন তা খুঁজে বের করার নতুন উপায় উপস্থাপন করে। যদিও তারা প্রত্যেকে ব্র্যান্ডের জন্য সূক্ষ্ম সুযোগ প্রদান করে, তারা এখনও এসইও এর মৌলিক নীতির উপর ভিত্তি করে।

যাইহোক অনেক বকবক করা হলো এখন আপনি কতটুকু কি বুঝতে পেরেছেন এবং এসইও সম্পর্কে আপনি কি মনে করেন ?

এখন আমি আপনার কাছ থেকে শুনতে চাই।

👉হতে পারে হয়তো আমি আপনার পছন্দের কোনো প্রশ্ন কিংবা পছন্দের কোনো কথা বলতো মিস করেছি ।

👇যেভাবেই হোক, নীচে একটি মন্তব্য রেখে আমাকে জানান।

17 thoughts on “SEO কি? সার্চ ইঞ্জিন অপটিমাইজেশন কি? What is SEO ?”

  1. Pingback: অন পেজ এসইও করে ওয়েবসাইট গুগোল রেংকিং 100% গ্যারান্টি - websoriful

  2. Pingback: SEO কি ? গুগোল কিভাবে Website Ranking করে ? - টিপস দাও

Leave a Comment

Your email address will not be published.