ডিজিটাল মার্কেটিং

ডিজিটাল মার্কেটিং – ডিজিটাল মার্কেটিং এর নাড়িভুঁড়ি

.

বর্তমানে, ব্যবসার বৃহত্তম এবং সর্বাধিক উন্নত শাখাটিকে ডিজিটাল বিপণন বলা হয়। এই নিবন্ধটি বিস্তারিতভাবে আলোচনা করেছে যে ডিজিটাল মার্কেটিং কি এবং এটি কিভাবে আপনার ব্যবসাকে খুব দ্রুত সমৃদ্ধ ও বৃদ্ধি করতে পারে।

ডিজিটাল মার্কেটিং কি ?

বর্তমান যুগ হল হাই স্পিরিট ইন্টারনেটের যুগ। এখন মানুষ ঘরে বসে পৃথিবীর সব খবর রাখতে পারে। বলা যেতে পারে পৃথিবী এখন কারো হাতের মুঠোয়। এই ইন্টারনেট ব্যবস্থা ব্যবহার করে যে ব্যবসায়িক মাধ্যম গড়ে উঠেছে তাকে ডিজিটাল মার্কেটিং বলে। এক কথায়, ডিজিটাল মার্কেটিং বলতে ইলেকট্রনিক মিডিয়ার মাধ্যমে কোনো পণ্য, প্রতিষ্ঠান বা ব্র্যান্ডের প্রচারকে বোঝায়। ইন্টারনেট ব্যবস্থা ডিজিটাল মার্কেটিং এর সাথে নিবিড়ভাবে জড়িত। যেমন- গুগল, ইউটিউব, বিভিন্ন ওয়েবসাইট, ফেসবুকসহ বিভিন্ন সোশ্যাল মিডিয়া।

ডিজিটাল মার্কেটিং কেন ?

উত্তর হতে পারে – খুব অল্প সময়ের মধ্যে আপনি আপনার পণ্য সঠিকভাবে গ্রাহকের কাছে আকর্ষণীয় উপায়ে উপস্থাপন করতে পারেন। 
আপনি সহজেই তাদের গ্রাহকদের চিহ্নিত করতে পারেন যাদের আপনার পণ্যের ব্যাপক চাহিদা রয়েছে। 
আপনার প্রতিদ্বন্দ্বী ব্র্যান্ডগুলির সাথে সহজেই ব্যবসায়িক ঘাটতি নির্ণয় করতে সক্ষম হন। 
এক কথায়, ডিজিটাল মার্কেটিং ব্যবসাকে বৃদ্ধির শিখরে পৌঁছাতে সাহায্য করবে।

কিভাবে ডিজিটাল মার্কেটিং শুরু করবেন ?

প্রথমত, আপনার পণ্যের সঠিক তথ্য এবং আকর্ষণীয় বিষয়বস্তু উপস্থাপন করা প্রয়োজন, কোন শ্রেণীর গ্রাহকের চাহিদা সবচেয়ে বেশি। 
আপনাকে পণ্যের ধরণ এবং চাহিদা অনুযায়ী বিষয়বস্তু সাজাতে হবে। 
মার্কেটিং শুরু করার জন্য আপনাকে কোন ডিজিটাল মাধ্যম ব্যবহার করতে হবে তা নির্ধারণ করতে হবে এবং সেই ডিজিটাল মাধ্যম সম্পর্কে আপনার ভালো জ্ঞান থাকতে হবে।

অনলাইন প্রচারণা কেন গুরুত্বপূর্ণ ?

বর্তমান সময়ে ৪০০ কোটির বেশি মানুষ ইন্টারনেট ব্যবহার করতেছে এবং এই ব্যবহারকারীর সংখ্যা প্রতিনিয়ত বাড়ছে। তাহলে আপনি একবার ভেবে দেখুন আপনার ব্যবসার বা পণ্যের মার্কেটিং টা যদি অনলাইনে করেন তাহলে কি পরিমান কাস্টমার আপনি পেতে পারেন। এজন্য প্রতিটা ব্যবসায়ের ক্ষেত্রে অনলাইন প্রচারণা বা ডিজিটাল মার্কেটিং গুরুত্বপূর্ণ।

ডিজিটাল মার্কেটিং ক্যারিয়ার ?

বিশ্বে চাকরি বাজারের মধ্যে ডিজিটাল মার্কেটিং ৩১ তম। এবং একজন ডিজিটাল মার্কেটার এর বাৎসরিক আয় ৮৯ লক্ষ টাকা। এবং ডিজিটাল মার্কেটার এর বেকারত্বের হার ১.৮%

ডিজিটাল মার্কেটিং কত প্রকার?

ডিজিটাল মার্কেটিং প্রধানত ৬ প্রকার। আমরা এই ৬ প্রকার ডিজিটাল মার্কেটিং নিয়ে আলোচনা করব।

কন্টেন্ট মার্কেটিং
সার্চ ইঞ্জিন অপটিমাইজেশন
সার্চ ইঞ্জিন মার্কেটিং
সোশ্যাল মিডিয়া মার্কেটিং
ইমেইল মার্কেটিং
ওয়েব অ্যানালিটিক্স

কন্টেন্ট মার্কেটিং:

বিষয়বস্তু এমন একটি বিষয় বা বস্তুর ডিজিটাল অভিব্যক্তি যা ব্লগ, ছবি বা ভিডিও ছবিতে আকর্ষণীয়ভাবে বর্ণিত হয়। বিভিন্ন পণ্যের ডিজিটাল বিজ্ঞাপনকে বিষয়বস্তু বিপণনও বলা যেতে পারে। কনটেন্ট মার্কেটিং হল ব্লগিং, পণ্যের বিস্তারিত আলোচনা, অনলাইন ছবি বা পোস্টারিং বা ভিডিওর মাধ্যমে কোনো পণ্য বা ব্র্যান্ডের প্রচার।

সার্চ ইঞ্জিন অপটিমাইজেশন:

সার্চ ইঞ্জিন অপটিমাইজেশন বা এসইও মূলত গুগল, ইয়াহু বিং বা অন্য কোন সার্চ ইঞ্জিনে আপনার ওয়েবসাইট সার্চ ফলাফল পর্যালোচনা করে। আজকের ডিজিটাল প্রতিযোগিতামূলক বাজারে, এসইও পণ্য বিপণনে খুব গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা পালন করছে। SEO আপনার প্রোডাক্টকে গুগল সার্চ বা সার্চ ইঞ্জিনের শীর্ষে নিয়ে আসবে, এটি আপনার প্রোডাক্টের বিক্রয় বাড়াবে। কারণ আজকাল মানুষ কোন পণ্য কেনার আগে গুগল বা সার্চ ইঞ্জিন থেকে সার্চ করে সিদ্ধান্ত নেয়। গুগল তার তথ্য নিয়মিত আপডেট করে। যদি আপনার সাইট SEO হয়, তাহলে এটি গুগল সার্চের প্রথম পাতায় উপস্থিত হবে এবং ফলস্বরূপ আপনার গ্রাহক বৃদ্ধি পাবে।

সার্চ ইঞ্জিন মার্কেটিং:

একজন অনলাইন মার্কেটারকে অবশ্যই সার্চ ইঞ্জিন মার্কেটিং (SEM) সম্পর্কে স্পষ্ট জ্ঞান থাকতে হবে। এর জন্য আপনার কিছু সার্চ ইঞ্জিন মার্কেটিং ফ্যাক্টর সম্পর্কে ভালো ধারণা থাকতে হবে। এটি করার মাধ্যমে আপনি সম্পূর্ণ সার্চ ইঞ্জিন মার্কেটিং সুবিধা পাবেন। অনলাইনে উপস্থিতি এবং যেকোনো ব্র্যান্ডের উন্নতির সবচেয়ে শক্তিশালী মাধ্যম শুধুমাত্র সার্চ ইঞ্জিন। কয়েকটি বিষয় মাথায় রেখে, আপনি সহজেই আপনার সাইটের প্রতিদ্বন্দ্বীদের থেকে আপনার ওয়েবসাইটকে একদল ব্যক্তি বা গোষ্ঠীর দ্বারা র rank্যাঙ্ক করতে পারেন। আমাদের অবশ্যই মনে রাখতে হবে যে, সার্চ ইঞ্জিন মার্কেটিং এর কাজ অপেক্ষা করার চেয়ে অনেক সহজ। সমস্ত অনলাইন বিপণন প্রক্রিয়া সার্চ ইঞ্জিন মার্কেটিং দ্বারা আচ্ছাদিত।

সোশ্যাল মিডিয়া মার্কেটিং:

সোশ্যাল মিডিয়া মার্কেটিং কি? সাধারণভাবে বলতে গেলে, আমরা ইন্টারনেট ব্রাউজিং এর মাধ্যমে সামাজিক যোগাযোগের জন্য প্রতিদিন যে সাইটগুলো ব্যবহার করি সেগুলো সবই সোশ্যাল মিডিয়া, এবং যদি আমরা এই সবের মাধ্যমে কোন পণ্যকে প্রচার করি, তাহলে সেটা হবে সোশ্যাল মিডিয়া মার্কেটিং। উদাহরণস্বরূপ, টুইটার, Pinterest, Instagram, YouTube, Facebook, Reddit, Tumblr, LinkedIn এবং অন্যান্য সোশ্যাল মিডিয়া সাইট।

ইমেইল মার্কেটিং:

ডিজিটালের মাধ্যমে গ্রাহকদের কাছে আপনার পণ্যের বিজ্ঞাপন পাওয়ার সবচেয়ে সহজ এবং দ্রুততম উপায় হল ইমেল মার্কেটিং। আপনি যা বিক্রি করেন তাতে কিছু আসে যায় না। আপনি এক ক্লিকে হাজার হাজার সম্ভাব্য গ্রাহকদের কাছে পৌঁছাতে পারেন। আপনি এক ক্লিকেই বিভিন্ন উপায়ে ইমেল সংগ্রহ করে এক মুহুর্তে আপনার পণ্যের বিজ্ঞাপন পৌঁছে দিতে পারেন। এটি আপনাকে প্রচুর গ্রাহক পাওয়ার সম্ভাবনা রাখে।

ওয়েব অ্যানালিটিক্স:

ওয়েব অ্যানালিটিক্স হল বিভিন্ন অঞ্চল থেকে কতজন আপনার ওয়েব সাইটে ভিজিট করছে এবং কতজন বিভিন্ন সাইট বা সফটওয়্যারের মাধ্যমে ভিজিট করছে তার বিশ্লেষণ। এক কথায়, কোনো ওয়েবসাইটের ভিজিটর সম্পর্কে বিস্তারিত তথ্য বিশ্লেষণ করাকে ওয়েব অ্যানালিটিক্স বলে। আমরা অনেকেই গুগল ওয়েব বিশ্লেষণ, বিং ওয়েব বিশ্লেষণ এবং ইয়াহুর ওয়েব বিশ্লেষণের সাথে পরিচিত। এগুলোর সাহায্যে একটি ওয়েবসাইটের ভিজিটরদের তথ্যসহ অন্যান্য তথ্য পাওয়া যাবে।

ডিজিটাল মার্কেটিং শেখার উপায়

সর্বপ্রথম আপনি গুগলে আর্টিকেল পরে এবং ইউটিউব ভিডিও দেখে মার্কেটিং সম্পর্কে যথেষ্ট আইডিয়া নেন। তারপর আপনি অনলাইন এ অনেক ফ্রী কোর্স আছে, সেগুলো করুন। সার্টিফিকেট সহ 4টি ফ্রি ডিজিটাল মার্কেটিং কোর্স। বা 4 Free Digital Marketing Courses With Certificate

1 thought on “ডিজিটাল মার্কেটিং – ডিজিটাল মার্কেটিং এর নাড়িভুঁড়ি”

  1. Pingback: অনলাইন ব্যবসার নাম রাখার টিপস ও দোকানের সুন্দর নামের তালিকা 2022 - websoriful

Leave a Comment

Your email address will not be published.