ফ্রিল্যান্সিং কিভাবে শিখবো

ফ্রিল্যান্সিং কিভাবে শিখবো (সাকসেসফুল ফ্রিল্যান্সার হওয়ার জন্য 9টি ধাপ)

 আপনি ফ্রিল্যান্সিং শিখতে চাচ্ছেন এবং আপনি কোন কাজ শিখবেন, ফ্রিল্যান্সিং কিভাবে শিখবো ? অর্থাৎ স্কিলের উপর আপনি স্কিল ডেভেলপ করবেন?

আমাদের মনে যখন এই প্রশ্নটা আসে, সর্বপ্রথম মাথায় আসে অনলাইনে কোন কাজের চাহিদা বেশি ? অনলাইনে ইনকাম করা আমরা ফ্রিল্যান্সার হিসেবে জানি। চলুন এই বিষয়টা নিয়ে আজকে বিস্তারিত কথা বলা যাক..

সুচিপত্র

ফ্রিল্যান্সিং কি

ফ্রিল্যান্সিং পেশা হচ্ছে মুক্ত পেশা। আপনি হয়তো ভাবছেন, ” ফ্রিল্যান্সিং কি?”  ফ্রিল্যান্সিং মানে অন্য কারো দ্বারা নিযুক্ত না হয়ে একটি স্বাধীন কোম্পানি হিসেবে কাজ করা। ফ্রিল্যান্সাররা স্ব-নিযুক্ত এবং স্বাধীন কর্মী। 

ফিভারের গিগ এবং  upwork এর বিট উত্থানের সাথে, লোকেরা আগের চেয়ে বেশি ফ্রিল্যান্সিং সম্পর্কে কথা বলছে।

আপওয়ার্ক এবং ফ্রিল্যান্সার ইউনিয়নের 2019 সালের একটি গবেষণায় দেখা গেছে, 18-22 বছর বয়সী 53% শ্রমিক ফ্রিল্যান্সিং করে।

ফ্রিল্যান্সার কি?

একজন ফ্রিল্যান্সার এমন একজন ব্যক্তি যিনি প্রতি চাকরি বা প্রতি কর্মের ভিত্তিতে অর্থ উপার্জন করেন স্বল্পমেয়াদী কাজের জন্য।

একজন ফ্রিল্যান্সার কোন নির্দিষ্ট কম্পানির কর্মচারী নন, সেইজন্য বিভিন্ন ব্যক্তি বা কম্পানির দ্বারা একযোগে বিভিন্ন কাজ সম্পন্ন করার স্বাধীনতা থাকে, যদি না কোন বিশেষ প্রকল্প সম্পন্ন না হওয়া পর্যন্ত চুক্তিভিত্তিকভাবে কাজ করার জন্য প্রতিশ্রুতি না হয়।

ফ্রিল্যান্সারদের অন্য কোম্পানিগুলো পার্টটাইম হিসাবে নিয়োগ দেয়, কিন্তু তারা পূর্ণকালীন কর্মচারীদের সমান ক্ষতিপূরণ পায় না। বা কোনো বিশেষ কোম্পানির প্রতি একই ধরনের প্রতিশ্রুতি রাখে না।

একজন ফ্রিল্যান্সারের উদাহরণ হবে একজন স্বাধীন ফটোগ্রাফার , যিনি নিজের পছন্দের ছবি তুলে এবং তারপর তারপর তার এই ছবিগুলো ব্যক্তি বা বিভিন্ন সাইটের কাছে বিক্রি করেন।

আরেকটি উদাহরণ হল একজন ওয়ার্ডপ্রেস ডিজাইনার বা অ্যাপ ডেভেলপার, যিনি একজন ক্লায়েন্টের জন্য এককালীন কাজ করেন এবং তারপর অন্য ক্লায়েন্টের কাছে চলে যান।

ফ্রিল্যান্সিং কিভাবে শিখবো

ফ্রিল্যান্সিং কিভাবে শিখবো
ফ্রিল্যান্সিং কিভাবে শিখবো

আপনি ফ্রিল্যান্সিং শুরু করার কথা ভাবছেন কিন্তু কোথা থেকে শুরু করবেন জানেন না? তাহলে এই গাইডটি আপনার জন্য।

ফ্রিল্যান্সিং কিভাবে শুরু করা যায় ! সে সম্পর্কে নতুনদের জন্য, আমি এটি একটি চূড়ান্ত দিক নির্দেশিকা হিসাবে তৈরি করেছি।

আপনি এসইও এক্সপার্ট, ওয়েব ডিজাইনার বা ডেভেলপার হিসেবে ফ্রিল্যান্সিং শুরু করতে চান কিনা, এই দিক নির্দেশিকা আপনাকে 9টি সহজ ধাপে আপনার  ফ্রিল্যান্সিং যাত্রা শুরু করতে সাহায্য করবে।

আমি এখন একটি সত্য কথা বলতেছি, ফ্রিল্যান্সিং ভাবার চেয়ে অনেক বেশি জটিল। কিছু লোক বিশ্বাস করে যে, ল্যাপটপ এবং ইন্টারনেট সংযোগ সহ যে কেউ অনলাইনে অর্থ উপার্জন করতে পারে। কিন্তু, এটা সত্য নয়।

আপনি যদি একজন ফ্রিল্যান্সার হওয়ার লক্ষ্য অর্জনের জন্য কঠোর পরিশ্রম করতে ইচ্ছুক হন, তবেই পড়া চালিয়ে যান।

আপনাকে এটাও চিন্তা করতে হবে, একজন ফ্রিল্যান্সার হওয়ার সুবিধাগুলির মধ্যে রয়েছে বাড়ি থেকে কাজ করার স্বাধীনতা, পছন্দের কাজের সময়সূচী এবং কর্মজীবনের একটি ভাল ভারসাম্য।

ফ্রিল্যান্স কাজ চাকরিচ্যুত কর্মীদের উপকার করতে পারে, অর্থনীতিতে সামগ্রিক বেকারত্বের ঘটনা কমিয়ে দেয়।

ধাপ 1: সঠিক সরঞ্জাম নির্বাচন করুন:-

ফ্রিল্যান্সিং কিভাবে শিখবো

আপনি যখন হতাশ তখন আপনি ভয়ঙ্কর সিদ্ধান্ত নেন। এবং ঠিক এই কারণেই আমি সবসময় উপদেশ দিচ্ছি দ্রুত অর্থ উপার্জনের জন্য ফ্রিল্যান্সিং শুরু না করার জন্য।

ফ্রিল্যান্সিং একটি দ্রুত সমৃদ্ধ প্রকল্প নয়। এর জন্য প্রয়োজন প্রচুর পরিশ্রম। আসলে, একজন ফ্রিল্যান্সার হিসাবে স্থির আয় করতে আমার প্রায় ১ বছর লেগেছিল। কিন্তু, সৌভাগ্যবশত, আজকে তোমার আগের চেয়ে অনেক বেশি সুযোগ আছে।

আমি প্রায়ই ফ্রিল্যান্সারদের কাছ থেকে প্রশ্ন পাই যে, তারা কোন স্মার্টফোন দিয়ে কাজ করার ফ্রিল্যান্সি করা যাবে কিনা। দ্রুত উত্তর হল না। 

তবে হ্যাঁ, মোবাইল ব্যবহার করে আপনি অনলাইনে ইনকাম করতে পারবেন। উদাহরণস্বরূপ ব্লগিং, ইউটিউব। এছাড়াও আরো অনেক কাজ যেমন কনটেন্ট রাইটিং।

মোবাইল দিয়ে সাকসেস হওয়ার সম্ভাবনা খুবই কম আপনি ডিপ্রেশনে চলে যেতে পারেন। তাই আমি আপনাকে পরামর্শ দিব, সঠিক সরঞ্জাম নির্বাচন করুন। যাতে আপনি ডিপ্রেশনে না চলে যান।

স্মার্টফোন অ্যাপগুলি বৈশিষ্ট্য সীমাবদ্ধ। সফটওয়্যার চালানোর জন্য আপনার একটি কম্পিউটারের প্রয়োজন, যা সঠিকভাবে কাজ করার জন্য ও  দুর্দান্ত ফলাফল প্রদানের জন্য প্রয়োজনীয়।

ফ্রিল্যান্সিং শুরু করার জন্য আপনার যে সরঞ্জামগুলো দরকার তা  হচ্ছে ভালো ইন্টারনেট  ও একটি ল্যাপটপ বা কম্পিউটার।

সুতরাং, আপনি অনলাইনে কাজ করার কথা ভাবার আগে, নিজেকে একটি ল্যাপটপ বা এমনকি একটি পুরানো কম্পিউটার চালানোর চেষ্টা করুন।

আপনার মনে কয়েকটি প্রশ্ন আসতে পারে, আমি ফ্রিল্যান্সিং শুরু করবো। আমি ল্যাপটপ থাকি ডেক্সটপ কিনব?

কোনটি আমার জন্য ভালো ?, আমি গ্রাফিক ডিজাইন শুরু করব?

আমি কোনটি কিনব ? , আমি ভিডিও এডিটিং  স্টার্ট করবো।

এটা নির্ভর করে আপনার কাজের কোয়ালিটির উপর। যেমন ধরেন, আপনি যদি গ্রাফিক ডিজাইন শুরু করেন। তাহলে অবশ্যই আপনার ভাল মানের একটি ল্যাপটপ বা কম্পিউটার দরকার। কারন আপনাকে কিছু ভারী সফটওয়্যার ব্যবহার করতে হবে।

যদি আপনি ভিডিও এডিটিং শিখতে চান, তাহলে অবশ্যই আপনাকে ভারী সফটওয়্যার ব্যবহার করতে হবে। উদাহরণস্বরূপ এডোবি প্রিমিয়ার প্রো।

যদি আপনি এসইও বা ডিজিটাল মার্কেটিং বা ওয়ার্ডপ্রেস এ কাজ করতে চান। তাহলে একটি নরমাল ল্যাপটপ বা কম্পিউটার এ কাজ করতে পারবেন। কারণ এখানে আপনাকে ভারী সফটওয়্যার ব্যবহার করতে হবে না।

আরো বিস্তারিত জানতে এই আর্টিকেলটি পড়ুন, ফ্রিল্যান্সিং শুরু করবেন? ল্যাপটপ নাকি ডেক্সটপ! কোনটি কিনবেন?

ধাপ 2: একটি বিক্রয়যোগ্য ভালো স্কিল খুঁজুন:-

ফ্রিল্যান্সিং কিভাবে শিখবো

দ্বিতীয় ধাপটি সবচেয়ে বেশি গুরুত্বপূর্ণ পদক্ষেপ হল একটি দক্ষতা খুঁজে বের করা, যা আপনি একটি পরিষেবা হিসাবে দিতে পারেন।

এটি ওয়ার্ডপ্রেস দিয়ে ওয়েবসাইট তৈরি করার মত সহজ কিছু হতে পারে অথবা মোবাইল অ্যাপ ডেভেলপ করার মতো উন্নত কিছু হতে পারে।

যাই হোক, সফল ফ্রিল্যান্সার হওয়ার জন্য একটি দক্ষতা খুঁজে বের করা, যা আপনি ভাল এবং বাজারে যথেষ্ট চাহিদা রয়েছে। বাজার বলতে আমি মার্কেটপ্লেস, উদাহরণস্বরূপ upwork.com, fiverr.com, freelancer.com, peopleperhour.com, ইত্যাদিকে বুঝিয়েছি

উদাহরণস্বরূপ, যদি আপনি গ্রাফিক ডিজাইনে পারদর্শী হন, তাহলে আপওয়ার্ক বা ফ্রিল্যান্সারের মতো  ফ্রিল্যান্স মার্কেটপ্লেসে যান এবং এই ধরনের কাজের জন্য চাকরি আছে কিনা তা পরীক্ষা করে দেখুন, অবশ্যই প্রতিদ্বন্দ্বীদের রিসার্জ করবেন।

যদি আপনার দক্ষতার জন্য সেই সাইটগুলিতে পর্যাপ্ত কাজের তালিকা থাকে, কম প্রতিদ্বন্দ্বী এবং ভালো ডিমান্ড থাকে। তাহলে অবশ্যই আপনি  স্কিল গুলো শিখতে পারেন।

ধাপ 3: আপনার স্কিল উন্নতি করুন:-

ফ্রিল্যান্সিং কিভাবে শিখবো?

ফ্রিল্যান্সিং কিভাবে শিখবো

একবার আপনি একটি বিক্রয়যোগ্য স্কিল খুঁজে পেলে, আপনাকে নিশ্চিত করতে হবে যে, আপনি এটিকে একটি পরিষেবা হিসাবে ফ্রিল্যান্সিং মার্কেটপ্লেসে দিতে পারেন।

সোজা কথায়, ওই স্কিল এর জন্য অর্থ পেতে আপনি যা করতে চান তাতে আপনাকে সত্যিই খুবই এক্সপার্ট হতে হবে।

উদাহরণস্বরূপ, আপনি এসইও এক্সপার্ট হতে চান, আপনি একজন ফ্রিল্যান্সার হিসেবে বিভিন্ন মার্কেটপ্লেসে এসইওর কাজ করতে পারেন। এই বিভাগের ভালো চাহিদা রয়েছে।

আপনি যেই স্কিনের উপর ফোকাস করেছেন, সেই স্কিল এ যথেষ্ট ভালো কাজ শিখুন। যাতে আপনার প্রতিবন্ধীদের থেকে আপনি পিছিয়ে না পারেন।

এটি অন্য সব ফ্রিল্যান্সিং দক্ষতার জন্য একই। ভালোভাবে কাজটি শেখার চেষ্টা না করেই আপনি সরাসরি ঝাঁপিয়ে পড়তে পারবেন না। আপনাকে অবশ্যই প্রথমে আপনার দক্ষতাকে উন্নত করতে হবে।

এখন আপনার প্রশ্ন হতে পারে, কিভাবে আমি আমার স্কিল ডেভেলপ করব?

আপনার স্কিল ডেভেলপ করার জন্য গুগোল করুন, ইউটিউব চ্যানেলগুলিতে সাবস্ক্রাইব করুন এবং আপনার দক্ষতা এবং শিল্প সম্পর্কিত ব্লগগুলি।

ছাড়াও, একটি কোর্স সঠিকভাবে শেখার এবং পালিশ করার জন্য অনলাইন কোর্স গ্রহণ করা সবচেয়ে কার্যকর উপায়। তবে এখানে প্রতারণা হওয়ার সম্ভাবনা অনেক বেশি। তাই আপনাকে খুব সতর্কতার সহিত কোর্স সিলেক্ট করতে হবে।

আপনি যে ইনস্টিটিউট থেকে কোর্স গ্রহণ করতে চাচ্ছেন, অবশ্যই সে ইনস্টিটিউট বা ব্যক্তি সম্পর্কে অনলাইনে খোঁজার চেষ্টা করুন এবং তার ফিডব্যাক দেখুন। যদি ভালো ফিডব্যাক দেখতে পারেন, তাহলে আপনি সিলেক্ট করতে পারেন।

শূন্য থেকে একটি দক্ষতা খুঁজে পেতে সময় লাগে। সুতরাং ধৈর্য ধরুন এবং শেখা এবং অনুশীলন চালিয়ে যান। এতে সপ্তাহ, মাস বা বছর লাগতে পারে। এটা মনে রাখুন, অবশ্যই আপনি হতাশ হবেন না।

ধাপ 4: আপনার সুখ্যাতি গড়ে তুলুন:-

ফ্রিল্যান্সিং কিভাবে শিখবো

আপনার দক্ষতা এবং তার উপর কাজ প্রমাণ করবে যে আপনি সফল ফ্রিল্যান্সার হবেন কি না।

আপনার যদি কলেজের ডিগ্রি বা অভিজ্ঞতা থাকে তাতে কিছু আসে যায় না। আপনি যদি ক্লায়েন্টদের কাছে প্রমাণ করতে না পারেন যে, আপনি যা করেন তাতে আপনি দক্ষ! ক্লায়েন্টরা আপনাকে কখনই নিয়োগ দেবে না।

আপনি যদি এসইও এক্সপার্ট হন, তাহলে অবশ্যই গুগলে আপনার ব্লগ বা ওয়েবসাইট টপ রেংকিং এ থাকা উচিত।

আপনি যদি একজন গ্রাফিক ডিজাইনার হন, তাহলে আপনাকে একটি ব্র্যান্ডের দিকে নির্দেশ করতে হবে, এমন কাজ থাকতে হবে এবং বলতে হবে যে আপনি তাদের লোগো ডিজাইন করেছেন। 

আর আপনি যদি ওয়েব ডিজাইনার হন, তাহলে আপনার ডিজাইন করা ওয়েবসাইটের লিঙ্ক পাঠাতে সক্ষম হতে হবে। এবং প্রমাণ করতে হবে আপনি এই কাজগুলো করেছেন।

সুতরাং, অনলাইনে আপনি আপনার সুখ্যাতি গড়ে তুলুন। যাই হোক না কেন, আপনি আপনার সুখ্যাতি গড়ে তোলার জন্য কাজ করুন।

ধাপ 5: একটি পোর্টফোলিও তৈরি করুন:-

ফ্রিল্যান্সিং কিভাবে শিখবো

যখন আপনি আপনার খ্যাতি গড়ে তুলতে শুরু করবেন, আপনার সমস্ত লাইভ কাজ এক জায়গায় আনতে একটি পোর্টফোলিও ওয়েবসাইট তৈরি করতে ভুলবেন না।

একটি পোর্টফোলিও একটি ওয়েবসাইট বা একটি ওয়েবপৃষ্ঠা হতে পারে, যেখানে আপনি আপনার সমস্ত লাইভ কাজ প্রদর্শন করতে পারেন।

উদাহরণস্বরূপ, আপনি যদি একজন UX Designer হন, তাহলে আপনি Behance .com এর মতো একটি সাইটে একটি পোর্টফোলিও পৃষ্ঠা তৈরি করতে পারেন, যাতে আপনার সমস্ত ডিজাইন দেখানো যায়।

একই ভাবে, যখন আপনি একজন ক্লায়েন্টের কাছে পৌঁছাচ্ছেন, তখন আপনি আপনার দক্ষতা যাচাই করার জন্য তাদের কেবল আপনার পোর্টফোলিওর লিঙ্ক দিতে পারেন এবং প্রমাণ করতে পারেন এটা আপনার কাজ। 

পোর্টফোলিওতে অবশ্যই আপনার সেরা কাজ অন্তর্ভুক্ত করা নিশ্চিত করুন, যাতে আপনার পোর্টফোলিও দেখে ক্লায়েন্ট আপনাকে নিয়োগ দেয়। 

ধাপ 6: সঠিক ফ্রিল্যান্সিং মার্কেটপ্লেস খুঁজুন:-

ফ্রিল্যান্সিং কিভাবে শিখবো

এই ধাপটি আপনি কত সহজে চাকরি পাবেন, তার একটি গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা পালন করে।

ফ্রিল্যান্সারদের শুরুতে একটি ভুল তা হল, সবচেয়ে জনপ্রিয় ফ্রিল্যান্স মার্কেটপ্লেস অনুসন্ধান করা এবং শুরু করতে যোগদান করা । UpWork বা Freelancer.com এর মত। এটা আপনার ফ্রিল্যান্সিং ক্যারিয়ার এর সব থেকে বড় ভুল।

এই ফ্রিল্যান্সিং সাইটগুলি ইতিমধ্যেই বিশ্বজুড়ে লক্ষ লক্ষ ফ্রিল্যান্সার দ্বারা পূর্ণ। এবং প্রতিযোগিতার কারণে, তারা চাকরি জয়ের জন্য বিডিং যুদ্ধে লিপ্ত হয়।

সুতরাং, সবচেয়ে ভাল পদ্ধতি তা হল এমন একটি মার্কেটপ্লেস বাছাই করা যা নতুনদের কাজ পাওয়ার সহজ। 

অনেক হয়তো বুঝে গেছেন আমি কোন ফ্রিল্যান্সিং মার্কেটপ্লেসের কথা বলতেছি! আমি অবশ্যই ফাইবার ফ্রিল্যান্সিং মার্কেটপ্লেসের কথা বলতেছি।

অতএব, নতুন অবস্থায় আপনাকে ফাইবার ফ্রিল্যান্সিং মার্কেটপ্লেস এ ঝাঁপিয়ে পড়া উচিত। কারণ এখানে আপনি নতুন অবস্থায় আপনি খুব সহজে কাজ পেতে পারেন।

গুরুত্বপূর্ণ আর্টিকেলগুলো হলো:-

ফ্রিল্যান্সিং কাজ শিখার পর কোন মার্কেটপ্লেস দিয়ে শুরু করবেন?

Fiverr vs upwork-কোন মার্কেটপ্লেস সেরা?

ফাইবার ফ্রিল্যান্সিং মার্কেটপ্লেস কে পছন্দ না করার ৬টি কারণ

ফাইবার বায়ার রিকোয়েস্ট এবং যোগাযোগের টিপস

ধাপ 7: সঠিক মূল্য নির্ধারণ করুন:-

ফ্রিল্যান্সিং কিভাবে শিখবো

ফ্রিল্যান্সিংয়ে আপনার পরিষেবার জন্য সঠিক মূল্য নির্ধারণ করা চ্যালেঞ্জিং হতে পারে। কারণ আপনি যদি ভুল মূল্য জিজ্ঞাসা করেন, ক্লায়েন্টরা আপনাকে ভাড়া নেওয়ার জন্য অবশ্যই আপনার সাথে যোগাযোগ করবে না।

শুরুতে সঠিক মূল্য বের করার সর্বোত্তম উপায় হল জনপ্রিয় ফ্রিল্যান্স মার্কেটপ্লেসগুলি দেখতে এবং আপনার আপনার স্কিলের ​উপর অন্যান্য ফ্রিল্যান্সাররা কী চার্জ করছে তা দেখুন।

ফ্রিল্যান্সিং কাজের মূল্য একজন ফ্রিল্যান্সারের অভিজ্ঞতার উপর নির্ভর করে। ফ্রিল্যান্সিংয়ে যার অভিজ্ঞতা বেশি তার মূল্য কিছুটা বেশি।  যেহেতু আপনি নতুন, অভিজ্ঞ ফ্রিল্যান্সারদের মতো একই দাম নেওয়া ঠিক নয়।

পরবর্তীতে যখন আপনার যথেষ্ট অভিজ্ঞতা অর্জন করবেন এবং আপনার মার্কেটপ্লেসের অ্যাকাউন্টে অনেক রিভিউ থাকবে। তারপর আপনি আপনার মূল্য বৃদ্ধি করতে পারেন।

মূল্য নির্ধারণের জন্য নতুন অবস্থায় নিজেকে কিছুটা সস্তা করেন, কারণ সস্তা ফ্রিল্যান্সারদেরকে ক্লায়েন্টরা বেশি খুঁজে। সুতরাং নতুন অবস্থায় খুব দ্রুত আপনি কাজ পেতে পারেন।

ধাপ 8: বিট করা শুরু করুন:-

ফ্রিল্যান্সিং কিভাবে শিখবো

একজন ক্লায়েন্টের কাছে প্রস্তাব লেখার জন্য বিস্তারিত কথা বলা দরকার।

এটি একটি নিয়মিত ইমেইল লেখার বা সোশ্যাল মিডিয়া পোস্ট লেখার মতো নয়। আপনাকে এটিতে গুরুতর চিন্তাভাবনা করতে হবে। একজন সাকসেসফুল ফ্রিল্যান্সার চাকরি নেয়ার জন্য ক্লায়েন্টকে কীভাবে প্ররোচিত করে তা খুঁজে বের করতে হবে।

সফল বিজয়ী প্রস্তাব লেখার সময় আপনি আপনার উপকারে কিছু টিপস এবং হ্যাক ব্যবহার করতে পারেন।

যদি আপনি ফাইবার মার্কেটপ্লেস এ শুরু করেন, তাহলে অবশ্যই বিজয়ী গিগ তৈরি করতে হবে। যাতে ক্লায়েন্টরা আপনাকে অর্ডার করার জন্য আগ্রহী হয়।

ফাইবার মার্কেটপ্লেস কিভাবে একটি সাকসেসফুল এবং একটি প্রফেশনাল গিগ তৈরি করবেন? এবং ফাইবার মার্কেটপ্লেস সম্পর্কে বিস্তারিত জানতে নিচের প্লেলিস্টটি দেখতে পারেন। Fiverr Zero to Hero

ধাপ 9 : চাকরি পাওয়ার পরে করনীয়:-

ফ্রিল্যান্সিং কিভাবে শিখবো

ফ্রীল্যান্সিং মার্কেটপ্লেস একবার আপনি নতুন কাজ পেয়ে গেলে, আপনাকে নিশ্চিত করতে হবে যে আপনি কাজটি সঠিকভাবে করতে পারবেন। এবং পরবর্তী পদক্ষেপটি নিশ্চিত করতে হবে যে আপনি প্রকল্পটি ঠিক সেইভাবে প্রদান করেছেন, যেভাবে ক্লায়েন্ট বলেছেন।

একজন ক্লায়েন্ট অবশ্যই একটি কাজ নিয়ে ফ্রিল্যান্সিং মার্কেটপ্লেসে আসে না। তাকে প্রতিনিয়ত প্রচুর কাজ করাতে হয়।

এই ক্ষেত্রে, আমি চাই যে আপনি ক্লায়েন্টের প্রত্যাশার উপরে এবং তার বাইরে গিয়ে কাজটি বেশি করে দিন। ক্লায়েন্টরা সবসময় আমার কাজে খুশি ছিল। এবং 5- স্টার রেটিং দিয়েছেন।

আমি আপনাকে একটি উদাহরণ দেব। আমি নতুন অবস্থায় অবশ্যই আমি ক্লায়েন্টদের বেশি কাজ করে দিতাম এবং পরবর্তীতে তার কাছে আমি প্রচুর অর্ডার নিয়েছি।

যদি আপনি একজন ক্লায়েন্ট এর বিশ্বাসযোগ্যতা অর্জন করেন, তাহলে পরবর্তীতে আপনাকে সে ক্লায়েন্ট প্রচুর কাজ দিবে।

এখন বর্তমানে আমার মার্কেটপ্লেসে বাইরে প্রচুর ক্লায়েন্ট আছে, যারা আমাকে মার্কেটপ্লেসে বাইরে কাজ দেয়। শুরুতে আমি তাদের বিশ্বাস অর্জন করেছিলাম।

তাই প্রত্যাশা ছাড়িয়ে কাজ করার একটি উপায় খুঁজুন। এবং প্রতিদ্বন্দ্বী থেক থেকে বেরিয়ে আসতে শিখুন। ফ্রিল্যান্সার হিসেবে দীর্ঘস্থায়ী ক্যারিয়ার গড়ার এটাই একমাত্র উপায়।

ফ্রিল্যান্সিং সম্পর্কে প্রায়শই জিজ্ঞাসিত প্রশ্নাবলী

সম্পর্কে প্রায়শই জিজ্ঞাসিত প্রশ্নগুলি আপনাকে আরও বুঝতে সাহায্য করবে যে ফ্রিল্যান্সিং শিল্পটি কীভাবে কাজ করে।

প্রশ্ন: ফ্রিল্যান্সিং কি এবং কিভাবে কাজ করে?

ফ্রিল্যান্সাররা স্ব-নিযুক্ত এবং স্বাধীন ঠিকাদার হিসাবে হিসেবে উল্লেখিত। ফ্রিল্যান্সারদের অন্য কোম্পানিগুলো পার্টটাইম বা স্বল্পমেয়াদী ভিত্তিতে নিয়োগ দেয়, কিন্তু তারা পূর্ণকালীন কর্মচারীদের সমান ক্ষতিপূরণ পায় না বা কোনো বিশেষ কোম্পানির প্রতি একই ধরনের প্রতিশ্রুতি রাখে না।

প্রশ্ন: সহজ ফ্রিল্যান্সিং কাজ কি?

ডেটা এন্ট্রি, ফেসবুক মার্কেটিং, ট্রান্সলেশন জব সবই সহজ গিগ যা আপনি ফ্রিল্যান্সার হিসেবে করতে পারেন। তবে মনে রাখবেন সহজ স্কিল দিয়ে আপনি বেশিদিন টিকে থাকতে পারবেন না। আপনি যদি একজন ফ্রিল্যান্সার হিসেবে ক্যারিয়ার গড়তে চান, তাহলে আপনার দক্ষতা বাড়ানোর জন্য আপনাকে কঠোর পরিশ্রম করতে হবে।

প্রশ্ন: ফ্রিল্যান্সিং কিভাবে শিখবো

আমি আপনাকে পরামর্শ দিব, আপনি যে স্কেলে ফ্রিল্যান্সিং করতে চান, সেই স্কিল সম্পর্কে ইউটিউব ভিডিও, গুগোল আর্টিকেল অথবা একটি সফল অনলাইন কোর্স করতে পারেন।  তবে অনলাইনে কোর্স প্রতারণা হওয়ার সম্ভাবনা বেশি। অনলাইনে মানহীন কোর্সের সংখ্যা অনেক বেশি।

প্রশ্ন: ফ্রিল্যান্সিং কেন কঠিন?

ফ্রিল্যান্সিং ইনকাম করা ততটা সহজ নয়। ফ্রিল্যান্সার হিসেবে সফল হওয়ার জন্য আপনাকে কঠোর পরিশ্রম এর সাথে দৃঢ় প্রতিজ্ঞা হতে হবে। আরও গুরুত্বপূর্ণ, অভিজ্ঞতা অর্জন এবং দক্ষতা বিকাশে সময় লাগে। 

প্রশ্ন: ফ্রিল্যান্সাররা কিভাবে কাজ খুঁজে পায়?

ফ্রিল্যান্সাররা বিভিন্ন পদ্ধতি ব্যবহার করে কাজ খুঁজে পেতে পারেন। উদাহরণস্বরূপ ফ্রীল্যান্সিং মার্কেটপ্লেস লাইক আপওয়ার্ক ফাইবার ফ্রিল্যান্সার এবং লিঙ্কডইন। এছাড়াও আপনি অনলাইনে প্রচুর ক্লায়েন্ট পাবেন সোশ্যাল মিডিয়া থেকে।

প্রশ্ন: ফ্রিল্যান্সিং এর সুবিধা এবং অসুবিধা কি?

একজন ফ্রিল্যান্সার হওয়ার সেরা জিনিসগুলির মধ্যে একটি হল আপনি উদ্যোক্তা  হতে পারেন। এটা একটা ব্যবসা চালানোর মত দক্ষতা অর্জণ করতে পারবেন। এবং আপনি আপনার পছন্দের টাইমে কাজ করতে পারবেন।

প্রশ্ন: চাকরির চেয়ে ফ্রিল্যান্সিং কি ভালো?

অন্য যেকোনো কাজের মতো, ফ্রিল্যান্সিংয়েরও সুবিধা এবং ক্ষতি আছে। সকাল ৬টা টু বিকাল 5 টা বিরক্তিকর অফিসের কাজের তুলনায় এটিতে অবশ্যই অনেক সুবিধা রয়েছে। তাই হ্যাঁ, ফ্রিল্যান্সিং একটি নিয়মিত কাজের চেয়ে ভালো হতে পারে।

7 thoughts on “ফ্রিল্যান্সিং কিভাবে শিখবো (সাকসেসফুল ফ্রিল্যান্সার হওয়ার জন্য 9টি ধাপ)”

  1. Pingback: অনলাইন ব্যবসার নাম রাখার টিপস ও দোকানের সুন্দর নামের তালিকা 2022 - websoriful

  2. Pingback: 2022 সালে অনলাইনে ইনকাম করার উপায়- কোন স্কিলের উপর আপনার কাজ শেখা উচিত! - websoriful

  3. Pingback: ফ্রিল্যান্সিং ক্যারিয়ার এর ভবিষ্যৎ , ফ্রিল্যান্সিং ভবিষ্যৎ 2022 - websoriful

  4. Pingback: মোবাইল দিয়ে ফ্রিল্যান্সিং - মোবাইল দিয়ে কিভাবে ফ্রিল্যান্সিং করা যায় ? - websoriful

  5. Pingback: নতুনদের জন্য ফ্রিল্যান্সিং মার্কেটপ্লেস কাজ পাওয়ার টিপস - টিপস দাও

  6. Pingback: ফ্রিল্যান্সিং এ কি কি কাজ করা যায় ? ফ্রিল্যান্সিং কাজ করার জন্য সেরা 12টি স্কিল - টিপস দাও

Leave a Comment

Your email address will not be published.