আর্টিকেল

কোন কিছু সম্পর্কে আর্টিকেল লেখা শুরু করার 18 টি টিপস

আপনি কোন কিছু সম্পর্কে আর্টিকেল লিখতে চাচ্ছেন, কিন্তু নিয়ে আর্টিকেল লিখবেন? খুঁজে পাচ্ছেন না? আর্টিকেল  লেখা শুরু করার জন্য আমি কিছু টিপস শেয়ার করবো, যেগুলো সম্পর্কে আপনার এগুলো আর্টিকেল লিখতে পারেন।

সুচিপত্র

1. টিউটোরিয়াল এবং হাউ-টু গাইড 

টিউটোরিয়াল এবং হাউ-টু গাইড সম্ভবত সবচেয়ে সহজ ধরনের ব্লগ পোস্ট আর্টিকেল, যা আপনি কাজ করতে পারেন। এটা সম্পর্কে আর্টিকেল লেখা সহজ, কারণ তারা আপনাকে এমন জিনিস সম্পর্কে কথা বলতে জড়িত করে, যা আপনি ইতিমধ্যে পণ্য বা পরিষেবাগুলির সাথে পরিচিত।

গাইড আর্টিকেল লেখার ক্ষেত্রে সবচেয়ে গুরুত্বপূর্ণ বিষয় হল আপনার টিউটোরিয়ালকে ক্ষুদ্রতম ধাপে এবং সহজ শর্তে বিভক্ত করা। হাউ-টু গাইড এ আপনি গ্রাহকদের বিভিন্ন সমস্যা সমাধান করার চেষ্টা করবেন।

হাউ টু গাইড আর্টিকেল এ  আপনি যেকোন সমস্যা সমাধান করার জন্য টিউটোরিয়াল তৈরী করতে পারে। আপনার সাম্প্রতিক কাজ সম্পর্কে চিন্তা করুন, এবং আপনি সম্ভবত একটি টিউটোরিয়াল লেখার জন্য কিছু দুর্দান্ত ধারণা খুঁজে পেতে পারেন। 

2. সর্বশেষ টেকনোলজি খবর সম্পর্কে

আপনি বিভিন্ন প্রযুক্তি আপডেট সম্পর্কে রেগুলার আর্টিকেল লিখতে পারেন। উদাহরণস্বরূপ স্যামসাং মোবাইল কোম্পানি তারা একটি নতুন স্মার্টফোন 2022 সালে নিয়ে আসবে।

 এই প্রযুক্তি সম্পর্কে আপনি আপনাদের ভিজিটরদেরকে আগেই জানিয়ে দিবেন। এছাড়া বিভিন্ন প্রযুক্তি সম্পর্কে আপনি আপনার ভিজিটরদেরকে ইনফরমেশন দেবেন।

এছাড়াও যেকোনো প্রযুক্তি সম্পর্কে আপনি রেগুলার আর্টিকেল লিখতে পারেন।

3. বর্তমান ঘটনা সম্পর্কে

উপরের পয়েন্টের অনুরূপ, এটি আরও বেশি বাস্তবসম্মত । আপনি কি পড়ে আনন্দ পান?আপনি আপনার বন্ধুদের সাথে কি বিষয়ে কথা বলবেন? যে সম্পর্কে লিখুন!

উদাহরণস্বরূপ ফেসবুকে একটি গান ভাইরাল হয়েছে। এই গান সম্পর্কে বিস্তারিত লিখতে পারেন এবং সেই গায়ক সম্পর্কে বিস্তারিত লিখতে পারেন।

আপনাকে ভাইরাল জিনিসগুলো খুঁজে বের করতে হবে, সে সম্পর্কে প্রতিনিয়ত আর্টিকেল লিখতে হবে।

এটি আরও ভাল যদি আপনি আপনার পণ্য বা পরিষেবার সাথে বর্তমান ঘটনাগুলিকে বেঁধে রাখতে পারেন।

4. বিতর্কিত বিষয় সম্পর্কে আর্টিকেল

এই ধরণের ব্লগ পোস্ট লিখতে সত্যিই মজাদার হতে পারে, তবে চালাক  হতে ভুলবেন না। বিতর্ক সর্বদা সংবাদযোগ্য – শুধু স্থানীয় খবর দেখুন, তারা সর্বদা বিভিন্ন বিতর্ক সম্পর্কে রিপোর্ট করে!

কোন বিতর্কটি আপনার আগ্রহ, এবং আপনি কীভাবে কথোপকথনে যোগ করতে পারেন, তা আপনাকে খুঁজে বের করতে হবে। বিতর্কের চারপাশে কীওয়ার্ডগুলি ব্যবহার করতে ভুলবেন না। 

 এছাড়াও আপনি বিভিন্ন কোম্পানির সাথে কোম্পানির বিতরকের বিষয় গুলো লিখতে পারেন। যেমন ফেসবুক বনাম অ্যাপল, হোয়াটসঅ্যাপ এর বিতর্ক ইত্যাদি।

যেহেতু বিতর্ক অত্যন্ত আবেগপ্রবণ, তাই আপনি সাবধানে থাকতে চান এবং আপনার কথাগুলি বুদ্ধিমানের সাথে নির্বাচন করুন।

অনলাইন ইনকাম করতে চাইলে

অনলাইনে আয় এর 5টি সেরা উপায়

Why SEO (কেন এসইও) ? এসইও শিখে অনলাইন ইনকাম এর 9টি সেরা মাধ্যম

ফ্রিল্যান্সিং আউটসোর্সিং অনলাইন ইনকাম কি?

5. সাক্ষাৎকার এর আর্টিকেল

আপনি বিভিন্ন সেলিব্রিটিদের সাক্ষাৎকার বা বড় ব্যবসা প্রতিষ্ঠান মালিকদের সাক্ষাৎকার লিখতে পারেন। যাদের সাক্ষাৎকার শোনার জন্য সবাইআগ্রহী তাদের সাক্ষাৎকার আপনি রেগুলার আপলোড করতে পারেন।

অবশই এখানে আপনাকে প্রতিনিয়ত বড় বড় ব্যক্তিদের সাক্ষাৎকার খুঁজে বের করতে হবে। সেলিব্রিটিদের সাক্ষাৎকার এবং ছেলিবেটি সম্পর্কে সবাই শুনতে চাই। আপনাকে গুলো খুজে বের করতে হবে।

7. পর্যালোচনা সম্পর্কে আর্টিকেল

কোন প্রোডাক্ট বা সার্ভিস কেনার আগে সর্বপ্রথম আমরা রিভিউ দেখে থাকি। এটা আজকাল সবাই করে। তাহলে কেন আপনি কেনা সর্বশেষ গ্যাজেট বা পরিষেবার জন্য একটি পর্যালোচনা লিখবেন না?

আপনার দিনের কয়েক মিনিট ব্যয় করুন, আপনার পণ্যের সুবিধা এবং অসুবিধাগুলি লিখুন এবং আপনার সুপারিশ দিন। 

যদিও এটি আপনার জন্য অনেক কাজ বলে মনে হচ্ছে না, এটি অনেক ট্রাফিক আনতে পারে। তবে এখানে আপনাকে  সৎ থাকতে হবে।

যদি আপনি ভুল ইনফরমেশন দেন, তাহলে অবশ্যই পরবর্তীতে আপনার প্রোডাক্টের রিভিউ কেউ গুরুত্ব দিব না।

একটা প্রোডাক্ট সম্পর্কে রিভিউ করুন। তার ভালো দিক এবং খারাপ দিকগুলো তুলে ধরুন। এবং মানুষকে কেনার পরামর্শ দিন। প্রডাক্ট রিভিউ করে আপনি এফিলিয়েট এবং এডসেন্স থেকে প্রচুর ইনকাম করতে পারেন।

8. তুলনা নিয়ে আর্টিকেল

একই কাজের জন্য একাধিক প্রডাক্ট অথবা একাধিক সফটওয়্যার আছে। আপনি একটা সাথে আরেকটি তুলনা করুন এবং যেটি ভালো সেটি দিয়ে কাজ করার করার পরামর্শ দিন।

যেমন ধরেন আমি একটি ওয়েবসাইট তৈরি করব। ওয়েবসাইট তৈরি করার জন্য অনেক ধরনের CMS (কনটেন্ট ম্যানেজমেন্ট সিস্টেম) আছে। ওয়াডপ্রেস ব্লগার শপিফাই  ইত্যাদি।

এখনো ভালো দিক এবং খারাপ দিক দুইটাই বিস্তারিত হবে আপনাকে আলোচনা করতে হবে।

এখনে আমি আরেকটি উদাহরণ দিই, কেউ একজন ফ্রিল্যান্সিং শিখতে চাচ্ছে। গ্রাফিক ডিজাইন এসইও ওয়েব ডিজাইন ইত্যাদি।  কোনটা সেকা ভালো সেটা সে সম্পর্কে জানেনা। সে সম্পর্কে আপনি একটি আর্টিকেল লিখতে পারেন এবং তাকে একটি ভাল পরামর্শ দিতে পারেন।

 আপনি তাকে খুব সুন্দরভাবে উপস্থাপন করে বুঝিয়ে দিবেন যে, কোন স্কিলটা শেখা তার জন্য উত্তম। এখানে আপনাকে একটু স্মার্ট হতে হবে।

9. সমস্যা এবং সমাধান সম্পর্কে আর্টিকেল

আপনি কি কখনও ভেবে দেখেছেন কেন সংবাদ কেন্দ্র সবসময় কিছু ভুল হওয়ার কথা বলে? দ্বন্দ্ব এবং সমস্যাগুলি ভিড়কে টেনে আনে।  আপনি একটি সমস্যা হাইলাইট করতে পারেন যেখানে আপনার সমাধান আছে।

এই সম্পর্কে আর্টিকেল লিখতে হলে আপনাকে আগে খুঁজে বের করতে হবে যে,  কোন বিষয়গুলো সমস্যা সমাধান করার জন্য মানুষ বেশি সার্চ ইঞ্জিন গুগলে সার্চ করে।

ধরা যাক আপনি ১০,০০০ এরও বেশি গ্রাহক নিয়ে একটি দুর্দান্ত ব্লগ চালাচ্ছেন। আরও ট্রাফিক তৈরির জন্য আপনি কীভাবে আপনার এসইও উন্নত করেছেন সে বিষয়ে একটি ব্লগ পোস্ট লেখার কথা বিবেচনা করুন।

সেই সমস্যাগুলো আপনি আইডেন্টিফাই করুন। এবং সেই সমস্যার সমাধান গুলো সম্পর্কে  আপনার ব্লগে পোস্ট দিতে পারেন। কারণ মানুষের যেগুলো দরকার সেগুলো আপনাকে করতে হবে।

10.পর্দার পেছনের গল্প সম্পর্কে আর্টিকেল

পর্দার পেছনের গল্প বলতে আমি এখানে সেলিব্রিটি কে বুঝানো হয়েছে। সেলিব্রেটিদের পার্সোনাল বিষয় নিয়ে আপনি আর্টিকেল লিখতে পারেন।

আপনি যদি সেরা অলরাউন্ডার হতে চান তাহলে অবশ্যই আপনি সাকিবকে ফলো করবেন।  আপনি যদি প্রযুক্তিতে থাকেন তবে আপনি পরবর্তী স্টিভ জবস হতে চান। আমরা সবাই জানতে চাই তারা কিভাবে তারা মহান কাজগুলো সম্পন্ন করে।

এই পোস্টের জন্য, আপনার দৈনিক বা সাপ্তাহিক রুটিন মানুষের সাথে শেয়ার করুন। 

যদি আপনার লেখার কোয়ালিটি ভালো হয়, তাহলে এখানে আপনি খুব সহজেই জনপ্রিয় হয়ে উঠতে পারেন।

11. অনুপ্রেরণামূলক গল্প সম্পর্কে আর্টিকেল

যদিও বিতর্ক বিক্রি হয়, কিন্তু বর্তমান বাজারে অনুপ্রেরণা চাহিদা খুবই বেশি। কিছু ভালো খবর শেয়ার করুন। সফল মানুষদের সফলতার গল্প শেয়ার করেন, যা মানুষ জানতে চাই।

অনুপ্রেরণামূলক এবং আশাবাদী গল্প ভাইরাল হয় কারণ এটি এমন কিছু যা মানুষ নিজেরাই অনুভব করতে চায়।

আশার গল্প শেয়ার করুন এবং দেখুন এটি অন্যদেরও একই কাজ করতে অনুপ্রাণিত করে। সাফল্য একটি গল্প যা বলা প্রয়োজন। এখানে আপনি বড় বড় ব্যক্তিদের সফলতার গল্প বলতে পারেন।

12. মজার পোস্ট সম্পর্কে আর্টিকেল

মজার এবং ফানি পোস্টগুলো আপনি করতে পারেন। এমন অনেক ফানি বিষয় আছে, যেগুলো মানুষ জানতে চাই। এ সম্পর্কে আপনি রেগুলার পোস্ট করতে পারেন। 

আপনার পোস্টটি বিদ্রূপাত্মক হোক বা কটাক্ষে ভরা হোক, একটি প্যারোডি পোস্ট লেখার কথা বিবেচনা করুন এবং মানুষকে  হাসাই। অন্যদেরকে বিনোদন দেয়ার চেষ্টা করুন। এভাবে আপনি আর্টিকেল লিখতে পারেন। 

13. অনলাইন ইনকাম সম্পর্কে আর্টিকেল

কিভাবে আপনি আপনার প্রথম অনলাইন ইনকাম শুরু করবেন। ব্লগিং ফ্রিল্যান্সিং ইউটিউ কোনটি করা উচিত। অনলাইন ইনকাম সম্পর্কে আপনি রেগুলার আর্টিকেল লিখতে পারেন।

এছাড়াও অনলাইনে ইনকাম এ সমস্যাগুলো সমস্যাগুলো সৃষ্টি হয়, সেই সমস্যাগুলো সম্পর্কেও আপনি রেগুলার আর্টিকেল লিখতে পারেন।

14. শিক্ষানবিশ গাইড সম্পর্কে আর্টিকেল

শিক্ষানবিস গাইড জনপ্রিয়। কারণ কোন শখ বা শিল্পের শিক্ষানবিশরা বেশি বেশি শিখতে আগ্রহী।

  আপনি একটি শিক্ষানবিশ গাইড তৈরি করে দূর থেকে পরামর্শদাতা হতে পারেন, যা তাদের চাহিদা পূরণে সহায়তা করে। এভাবে আপনার ওয়েবসাইটের জন্য দুর্দান্ত সামগ্রী তৈরি হবে।

শিক্ষানবিস গাইডগুলি এসইও উদ্দেশ্যেও দুর্দান্ত হতে পারে। কারণ আপনার নতুন শর্তাবলী ব্যাখ্যা এবং সংজ্ঞায়িত করা উচিত, পাশাপাশি সাধারণ শর্তগুলির প্রতিশব্দও সরবরাহ করা উচিত। 

এই বিষয়ে, আপনি একটি পোস্টে অনেক কীওয়ার্ড এমনভাবে প্যাক করতে পারেন যা সহায়ক এবং তথ্যবহুল।

এই ওয়েবসাইটে আপনি স্টুডেন্টদের জন্য বিভিন্ন তথ্য শেয়ার করতে পারেন।পরীক্ষার রেজাল্টের খবর থেকে শুরু করে সবকিছু।

15. কোন কিছু শুরু করার নির্দেশিকা সম্পর্কে আর্টিকেল

কেউ কোন কিছু শুরু করবে। কীভাবে শুরু করবে! সে বুঝতে পারে না এবং সে আত্মবিশ্বাস পায় না। আপনি আর্টিকেল এর মাধ্যমে তাকে আত্মবিশ্বাস দিতে পারেন।

আপনি একজন অভিজ্ঞ লেখক। আপনি জানেন কিভাবে একটি সফল ওয়েবসাইট চালাতে হয়। কিন্তু অনেকেই শুরু করতে জানেন না। কোথা থেকে শুরু করবেন? কোন বিষয়টা গুরুত্বপূর্ণ? আপনি কিভাবে সেই বিষয়গুলি উন্নত করবেন?

এ সম্পর্কে আপনি আর্টিকেল লিখতে পারেন যা নতুনদের খুবই সহায়ক হবে। অর্থাৎ নতুনদেরকে কোন কিছু করার জন্য উৎসাহিত করা।

এ সম্পর্কে সংক্ষিপ্ত পোস্ট খুব সহায়ক হতে পারে, এবং আপনার শিক্ষানবিস গাইডের শেষে একটি দুর্দান্ত প্রস্তাবিত পোস্ট হতে পারে।

16. ভ্রমণের অভিজ্ঞতা শেয়ার করুন সম্পর্কে আর্টিকেল

আপনি যদি ভ্রমণপিপাসু হন, তাহলে আপনার ভ্রমণ কাহিনী গুলো সম্পর্কে ব্লগ লিখতে পারেন। আপনার ভ্রমণের অভিজ্ঞতা গুলো মানুষের সাথে শেয়ার করুন যা মানুষ জানতে চাই

শুধু মনে রাখবেন যে ছবি ছাড়া কোন ভ্রমণ ব্লগ পোস্ট সম্পূর্ণ হয় না!

17. আপনার সফলতা এবং আপনার ব্যর্থতা সম্পর্কে আর্টিকেল

দুর্বলতা একটি চতুর জিনিস। আমার বা কারও পক্ষে ব্যর্থতার সাথে সৎ হওয়া সহজ নয়। কিন্তু বিদ্রূপাত্মকভাবে, দুর্বলতা যা ভাগ করা এত কঠিন তা সবচেয়ে সহায়ক এবং জনপ্রিয় বিষয়বস্তু হতে পারে।

একটি পোস্ট লেখার কথা ভাবুন। যেখানে আপনি সফল হয়েছেন। যেখানে আপনি ব্যর্থ হয়েছেন। 

এটি আপনার পাঠকদের সাথে শেয়ার করুন এবং আপনি দেখতে পাবেন আপনার কন্টেন্ট কতটা জনপ্রিয় হতে পারে।

18. নির্দিষ্ট একটি ভ্রমণ এলাকা সম্পর্কে

একটি নির্দিষ্ট এলাকা সম্পর্কে রেগুলার আপনি আর্টিকেল লিখতে পারেন। এরকম একটি পর্যটন এলাকা যেখানে মানুষ রেগুলার আসতে চাই।

আপনি উক্ত পর্যটন এলাকার বিভিন্ন সার্ভিস সম্পর্কে কথা বলতে পারেন। সেই পর্যটন এলাকার বিভিন্ন সার্ভিস এর অফার এবং সার্ভিস সম্পর্কে রেগুলার আর্টিকেল লিখতে পারেন।

এভাবে আপনি একটি নিদিষ্ট পর্যটন এলাকার অনলাইন গাইড হতে পারেন।

আর্টিকেল

ফ্রীল্যান্সিং মার্কেটপ্লেস সম্পর্কে রেগুলার আপডেট পেতে চাইলে আমার ইউটিউব চ্যানেল websoriful ফলো করতে পারেন।

1 thought on “কোন কিছু সম্পর্কে আর্টিকেল লেখা শুরু করার 18 টি টিপস”

  1. Pingback: আর্টিকেল লেখার কৌশল ও এসইও ফ্রেন্ডলি ব্লগ পোস্ট লেখার 11 টি টিপস - websoriful

Leave a Comment

Your email address will not be published.